আপনি যে ৭টি কথা সন্তানকে প্রতিদিন একবার করে বলা উচিত!

আপনার সন্তানকে নিশ্চয়ই আপনি নিজে’র চাইতেও বেশি ভালোবাসেন। প্রত্যেকেই চান তার সন্তান বেড়ে উঠুক একজন সফল এবং ভালো মানুষ হিসেবে। আর তাই নিজে’র সন্তানের দেখাশোনার কোনো ত্রুটি রাখতে চান না কেউ। আপনার আদরের সন্তানকে প্রতিদিন কিছু বিশেষ কথা জা’নানো জরুরী।

বিশেষ সেই কথাগুলো আপনার সন্তানের মনে ঢুকিয়ে দিলে জীবনের চলার পথে যে কোনো স’মস্যার মোলাবেলা সহজেই ক’রতে পারবে সে। জে’নে নিন ৭টি কথা স’স্পর্কে যেগুলো প্রতিদিনই একবার করে বলা উচিত সন্তানকে।

১. আপনার সন্তানকে প্রতিদিন একবার করে বলুন ‘তোমা’র উপর আমা’র বিশ্বা’স আছে। তাকে বিশ্বা’স করে ছোট খাটো কিছু দায়িত্ব পা’লন ক’রতে দিন। তাহলে তার মধ্যে আত্মবিশ্বা’স বাড়বে এবং সে আপনাকে আরো বেশি ভালোবাসবে।

২. সন্তানকে প্রতিদিন একবার করে হলেও বলুন সে যেন হাল ছে’ড়ে না দেয়। প্রতিটি কাজেই তাকে উৎসাহ দিন এবং হ’তাশ হয়ে হাল ছে’ড়ে দিতে মানা করুন। তাকে বলুন ধৈর্য ধ’রে এগিয়ে গেলেই সাফল্যের দেখা পাবে সে।

৩. কোনো কিছু না পারলে তাকে বকাঝকা না করে আরো বেশি অনুশীলন ক’রতে বলুন। তাকে সবসময়েই এটা বলুন যে বার বার অনুশীলন করলেই সে ‘পারফেক্ট’ হতে পারবে।

৪. প্রতিটি ‘এক্সপার্ট’ মানুষই একসময়ে আনাড়ি ছিলো। এই কথাটি আপনার সন্তানকে প্রতিদিনই বুঝিয়ে বলুন। এতে সে যে কোনো কাজে সাহস পাবে।

৫. ব্য’র্থতা কোনো অপরাধ নয় এটা আপনার সন্তানকে বুঝিয়ে বলুন। আপনার সন্তান কখনো ব্য’র্থ হলে তাকে বকাঝকা না করে ব্য’র্থতা কে ভুলে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে বলুন।

৬. মাঝে মাঝে খা’রাপ সময় আসে জীবনের । খা’রাপ সময় থেকে শিক্ষা নিয়ে ভালো সময়ে সেটাকে কাজে লা’গানোর জন্য সন্তানকে উৎসাহিত করুন নিয়মিত আপনার সন্তানকে প্রতিদিনই জা’নিয়ে দিন তাকে আপনি কত ভালোবাসেন।

কবিরাজ: তপন দেব,সাধনা ঔষধালয় । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

৭. পরিবার হলো সবচাইতে নি’রাপদ যায়গা এবং পরিবার আপনার সন্তানকে কতটা ভালোবাসে সেকথা তাকে জা’নিয়ে দিন। এতে সে নিজেকে নি’রাপদ ভাববে এবং পরিবারের প্রতিও সে ভালোবাসা দেখাবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *