জেনে নিন- ব’জ্রপাতে মৃ’ত্যু কি শহীদি নাকি অ’ভিশাপের।

ব’জ্রপাত মহান আল্লাহ তায়ালার মহাশক্তির এক ছোট নিদর্শন। এতেই মানুষ বি’চলিত হয়ে পড়ে। যার ওপর ব’জ্রপাত হয় তার মৃ’ত্যু অনেকটাই নিশ্চিত। তা থেকে বাঁচতে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা ও দোয়া করতে বলেছেন বিশ্বনবী (সা.)। হাদিসে এসেছে-
হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) তার বাবা থেকে বর্ণনা করেছেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) যখন বজ্রের শব্দ শুনতেন বা বিদ্যুৎ চমক দেখতেন তখন সঙ্গে সঙ্গে বলতেন-
اَللَّهُمَّ لَا تَقْتُلْنَا بِغَضَبِكَ وَ لَا تُهْلِكْنَا بِعَذَابِكَ وَ عَافِنَا قَبْلَ ذَلِكَ

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা লা তাক্বতুলনা বিগাদাবিকা ওয়া লা তুহলিকনা বিআজাবিকা, ওয়া আ’ফিনা ক্ববলা জালিকা।’ (তিরমিজি, হাদিস নং: ৩৪৫০)

কবিরাজ: তপন দেব,সাধনা ঔষধালয় । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রভু! তোমার ক্রো’ধের বশবর্তী হয়ে আমাদের মে’রে ফেল না আর তোমার আজাব দিয়ে আমাদের ধ্বং’স করো না। বরং এর আগেই আমাদের ক্ষমা ও নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে নাও।’

অন্য রেওয়ায়েতে আছে, হজরত ইবনে আবি জাকারিয়া থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, যে ব্যক্তি বজ্রের আওয়াজ শুনে এ দোয়া পড়বে সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি’ সে বজ্রে আ’ঘাতপ্রাপ্ত হবে না (মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা, হাদিস নং: ২৯২১৩)।

বাংলা শব্দ বজ্রর আরবি প্রতিশব্দ রা’দ। যে নামে পবিত্র কোরআনুল কারীমের ১৩ নং সুরাটির নামকরণ করা হয়েছে। বজ্র সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে আল্লাহ পাক এরশাদ করেন, ‘বজ্র তারই তাসবিহ ও হামদ জ্ঞাপন করে এবং তার ভয়ে ফেরেশতাগণও (তাসবিহরত রয়েছে)। তিনিই গর্জমান বিজলি পাঠান, তারপর যার ওপর ইচ্ছা একে বিপদরূপে পতিত করেন।

আর তাদের (অর্থাৎ কাফিরদের) অবস্থা এই যে তারা আল্লাহ সম্পর্কেই তর্কবিতর্ক করছে, অথচ তার শক্তি অতি প্রচণ্ড’ (সুরা রা’দ, আয়াত নং: ১৩)। বজ্রপাতে মৃ’ত্যু কি শহীদি নাকি অ’ভিশাপের এই ধরনের ধারণা বা প্রশ্ন অনেকের মনেই ঘুরপাক খায়। বজ্রপাতে মৃ’ত্যুকে কেউ কেউ শহীদি মৃ’ত্যু বলে থাকেন।

অথচ সহিহ বুখারী হাদিস নং ২৮২৯ এ বর্ণিত ৫ বা ৭ প্রকারের অথবা সুনানে আবু দাউদে যে ১০ প্রকারের শহীদি মৃ’ত্যুর কথা বলা হয়েছে সেখানে বজ্রপাতে মৃ’ত্যুর কোনো কথা উল্লেখ নেই। এ সম্পর্কে ইসলামিক স্কলার্সরা বলেন, মুমিনের জন্য আকর্ষিক মৃ’ত্যু হচ্ছে একটি ‘রহা’ বা প্রশান্তি । কেননা এর দ্বারা মুমিন আল্লাহর সান্নিধ্যে চলে যান, জান্নাতের পথে অগ্রসর হন বা দুনিয়ার কষ্ট থেকে মুক্তি পেয়ে যান।

সুতরাং বজ্রপাতে মৃ’ত্যুকে শহীদি মৃ’’ত্যু বলার কোন অবকাশ নেই। অপরদিকে কেউ কেউ এই মৃ’ত্যুকে ঠাডা পড়া মৃ’ত্যু বা অ’ভিশাপের মৃ’ত্যুও বলে থাকেন যা একটি জঘন্যতম অপরাধ কেননা পবিত্র কোরআনুল কারীমে বা হাদিস গ্রন্থে কোথাও বজ্রপাতে মৃ’ত্যুকে অপমৃ’ত্যু বা আল্লাহর গজবের মৃ’ত্যু বলা হয়নি সুতরাং যারা বজ্রপাতে মৃ’ত্যুকে শহীদি মৃ’ত্যু বা অ’ভিশাপের মৃ’ত্যু বলে আখ্যায়িত করছেন তার কোনটাই সঠিক নয় এবং এটা নিছক একটা কু’সংস্কার মাত্র।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *