লোক নিয়োগ দিচ্ছে তালেবান

দখলকৃত এলাকায় বিভিন্ন কাজের জন্য লোক নিয়োগ দিচ্ছে তালেবান। তারা জনগণের কাছ থেকে সার্মথ্য অনুযায়ী অর্থ আদায়ও করছে। খবরে বলা হচ্ছে, বালাখ প্রদেশে তালেবান স্থানীয় লোকদের আয় থেকে অর্থ দাবি করছে।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

প্রদেশটির স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানিয়েছে। এমনকি তালেবান স্থানীয় লোকদের চাকরিতে নিয়োগও দিচ্ছে। উল্লেখ্য, বালাখ প্রদেশের ১৪ জেলার মধ্যে ৯টিই তালেবানের দখলে। টোলো নিউজের খবর।

তালেবান নিয়ন্ত্রিত কালদার জেলা গভর্নর মোহাম্মদ ইউসুফ বলছেন, পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সে ভবন নির্মাণকাজে যারা নিয়োজিত তাদের মাত্র ২০ জন তালেবান যোদ্ধা, অন্যরা সবাই স্থানীয় লোকজন। তালেবান তাদের নিয়োগ দিয়েছে। অনেক তালেবান যোদ্ধা গ্রামে গ্রামে যাকাতের টাকা সংগ্রহ করছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, প্রতিটি জেলায় ২শ’র বেশি তালেবান যোদ্ধা নেই। তবে তাদের সঙ্গে স্থানীয় লোকদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। নিয়োগপ্রাপ্তরাও যুদ্ধ করছে তালেবান সৈন্য হিসেবে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে কালদার জেলা নিয়ন্ত্রণে নেয় তালেবান। পরিস্থিতি যাতে আর খারাপের দিকে না যায় সেজন্য আফগান নিরাপত্তার বাহিনীর সদস্যরা ৫ কিলোমিটার দূরে মোতায়েন রয়েছে।

হায়রাতান স্থলবন্দর বর্ডার ক্রসিং যাতে তালেবান দখল না করতে পারে সেজন্য সরকারি বাহিনী কঠোর তদারকিতে রয়েছে। বর্ডার ক্রসিংটি আফগানের উত্তরাঞ্চলের অর্থনৈতিক প্রবাহ বৃদ্ধিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।

বালাখ প্রদেশের শর্টপা জেলার গভর্নর মুহাম্মদ হাশেম মানসুরি জানাচ্ছেন, তালেবান বাজার, দোকানপাট ও স্থানীয় জনগণের ওপর ট্যাক্স বসাচ্ছে। যার যেরকম সামর্থ্য সে সেরকম কর দিচ্ছে। বড় রকমের অর্থ না দিলে অনেককে আবার হয়রানি করা হচ্ছে। তালেবানের সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে বাণিজ্যিক কার্যক্রম ব্যাপকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। বিশেষ করে স্থলবন্দর এলাকায় এ সমস্যাটি প্রকট।

হায়রাতানের অধিবাসী সিফতুল্লাহ বলছেন, জনগণ খুবই উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকরা তাদের ব্যবসা নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে আছে।২০৯ শাহীন আর্মি ক্রপসের কমান্ডার খানুল্লাহ সুজা বলেন, সরকারি নিরাপত্তা বাহিনী জনগণের নিরাপত্তার ও জান-মাল রক্ষার জন্য নিয়োজিত রয়েছে। আমাদের সেনারা সাহসিকতার সঙ্গে তাদের দায়িত্ব পালন করছে। শহর রক্ষায় তারা সম্পূর্ণ প্রস্তুত। শিগগির আমরা প্রতিরোধ যুদ্ধ শুরু করব।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *