সৌদি পর্যট’ক উসমান শাহিনঃ উটে চড়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে ম’ক্কায় যে হ’জ যাত্রী

হ’জ পালন করতে উটে করে হাজার বছরের পুরোনো পথ পাড়ি দিয়ে ম’ক্কায় পৌঁছেছেন এক সৌদি পর্যট’ক। দীর্ঘ ২৫ দিনে ৬৭৫ কি.মি পথ পাড়ি দেওয়ার সময় তিনি বিভিন্ন ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্’বিক স্থানে অবস্থান করেন। সৌদি সংবাদ মাধ্যম আল আরাবিয়ার প্রতিবেদনে জানা যায়।

সৌদি পর্যট’ক উসমান শাহিন হ’জ পালন করতে দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল আসির প্রদেশের অন্তর্ভূক্ত খামিস মাশিত শহর থেকে ম’ক্কা নগরীর উদ্দেশ্যে উটে করে যাত্রা শুরু করেন। তরিক আল ফিল তথা যে পথ দিয়ে আবরাহার নেতৃত্বে হস্তিবাহিনী কাবা ঘর ভাঙ্গার জন্য গিয়েছিল, সে পথ ধরে তিনি হ’জ পালন করতে ম’ক্কা পৌঁছেছেন।

উসমান শাহিন বলেন, ‘অনেক দিন যাব’ত ভেবে এই যাত্রার জন্য আমি প্রস্তুতি নিয়েছি। হ’জ যাত্রাকালে আমি বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্’বিক স্থানে দাঁড়িয়েছি। এর ঐতিহাসিক গু’রুত্বও তুলে ধ’রার চে’ষ্টা করেছি। তাছাড়া প্রাচীনকালে হাজিদের হ’জযাত্রার ক্লান্তি ও ক’’ষ্টের চিত্রও তুলে ধরেছি।’

উসমান শাহিন আরো জানেন, ‘পূর্বপু’রুষদের হ’জ পালনের অনেক ঘটনা আম’রা শুনেছি। তাই প্রাচীন কালের ঐতিহাসিক আল ফিল পথ দিয়ে সৌদি ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে আমি হ’জযাত্রা শুরু করি। ইস’লামপূর্ব সময়ে এই পথটি ব্যবসা-বাণিজ্যের পথ হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। আধুনিক যুগে আমি প্রথম ব্যক্তি যিনি হ’জ পালন করতে উটে চড়ে প্রাচীন পথ পাড়ি দিয়েছি।’

উসমান শাহিন শুধু সৌদির ভেতরে অ্যাডভেঞ্চার করেছেন তা নয়। বরং তিনি গত পাঁচ বছরে সৌদির ঐতিহ্য তুলে ধরতে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে গিয়েছেন। সৌদি ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে তিনি এভা’রেস্ট জয় করেছেন। নিজের ভাইকে নিয়ে তিনি হিমালয়ে আরোহন করেছেন এবং সেখানে নামাজ আ’দায় করেছেন। এছাড়াও এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক প্র’শি’দ্ধ পর্বত আরোহন করেছেন।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

‌‌শাহিন বলেন, যেকোনো স্থানে ভ্রমণের জন্য অনেক পরিশ্রম, ধৈর্য এবং চ্যালেঞ্জের প্রয়োজন। পর্যট’কদের যেমন বিভিন্ন শহর-নগর অ’তিক্রম করতে হয়, তেমনি গভীর অরণ্য, গভীন উপ’ত্যাকা, ম’রুভূমির নীরব-নিস্তব্ধ পথ পাড়ি দিতে হয়। তদুপরি আমা’র তা খুব পছন্দের। কারণ অ্যাডভেঞ্চারের মাধ্যমে আমি নতুন কিছু আবি’ষ্কার করি।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *