অবশেষে মেসি-নেইমারের আবেগঘন মুহূর্ত, আপ্লুত বিশ্ববাসী

অবশেষে শিরোপাস্বপ্ন পূরণ হলো আর্জেন্টিনার। দীর্ঘ ২৮ বছর পর আবারও কোন মেজর শিরোপা জিতলো দলটি। কো’পা আমেরিকার শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে ব্রাজিলকে হারিয়ে শিরোপা জেতার গৌরব অর্জন করে মেসিরা ম্যাচশেষে কান্নায় ভেঙে পড়লেন লিওনেল মেসি ও নেইমা’র জুনিয়র দুজনই। জেতার আনন্দে যখন আ’ত্মহারা মেসি, ঠিক তখনই দেখা মিলল পুরো কোপা আমে‌রিকার সব‌চে‌য়ে সুন্দর দৃশ্যের।

বন্ধু মেসির আনন্দে ভাগ বসাতে কাছে এলেন নেইমা’র। লিওনেল মেসিকে জড়িয়ে ধরলেন পরম ভালবাসায়। হয়তো মেসির কাঁধে আরেকবার কান্নায় ভেঙে পড়েন এই ব্রাজিলয়ান তারকা। মেসি-নেইমা’রের এই দৃশ্য দেখে আবেগে ফেটে পড়েছেন দুই দলের সমর’্থকরা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শুরু হয়েছে তাদের নিয়ে খোশ গল্প।

একদিকে থাকে বিজয়ের উল্লাস তো অ’পরদিকে শুধুই পরাজয়ের গ্লানি। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে হারিয়ে অবশেষে আন্তর্জাতিক খেতাব উঠেছে লিওনেল মেসির হাতে। তবে তার স্বপ্নপূরণের রাতেই স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে একদা বার্সেলোনা সতীর্থ ও কাছের বন্ধু নেইমা’রের।

খেলায় জয়-পরাজয় থাকবেই। একদল জিতবে, একদল হারবে। এটাই নিয়ম, এটাই সত্য। কো’পার ফাইনালে মুখোমুখি মেসি এবং নেইমা’র। স্বাভা’বিকভাবেই দু’জনের একজন হাসবেন, একজন কাঁদবেন। দু’জনের একসঙ্গে হাসার কোনো সুযোগই ছিল না। মেসির জন্য প্রথম হলেও নেইমা’রের জন্য প্রথম ছিল না। নেইমা’র এর আগে কনফেডারেশন্স কাপ জিতেছিলেন।

তবে, নেইমা’রের জন্যও প্রথম ছিল। কো’পা আমেরিকায় প্রথম শিরোপা জয়ের সুযোগ। ২ বছর আগে যে ব্রাজিল কো’পা জিতেছিল, সেবার খেলতে পারেননি নেইমা’র। ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী স্টেডিয়াম মা’রাকানায় কো’পা আমেরিকার ফাইনালে সেলেকাওদের ১-০ গোলে হারিয়েছে আর্জেন্টিনা। একমাত্র গোলটি এসেছে ফরোয়ার্ড ডি মা’রিয়ার পা থেকে।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

ফাইনালে একাদশে বিরাট পরিবর্তন আনেন আর্জেন্টাইন কোচ লিওনেল স্কালোনি। আগের ম্যাচগু’লোতে ডি মা’রিয়া নামতেন বদলি হিসেবে শেষ দিকে। আজ শুরুতেই তাকে দেখা গেল মাঠে। আর সুযোগের সদ্ব্যবহার করলেন ডি মা’রিয়া। আস্থার প্রতিদান দিলেন। রেফারির শেষ বাঁশিতে মেসি যখন জয়োল্লাসে ব্যস্ত, বন্ধু নেইমা’র তখন ডুকরে ডুকরে কাঁদছেন। আস্তিনে মুখ লুকাচ্ছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *