মাকে পাগল সাজিয়ে রিহ্যাব সেন্টারে রেখে আসে ছেলে

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে মায়ের টাকায় বাড়ি করে ছোট ছেলে। এরপর মাকে মা;র;ধ;র করে পাগল সাজিয়ে রেখে আসে রিহ্যাব’ সেন্টারে। লোক মা’রফত খবর পেয়ে উ’দ্ধার করেন ফ্রান্স প্রবাসী বড় ছেলে।এমনই অ’ভিযোগ করেছেন এক অশীতিপর বৃ’দ্ধা মা নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ২১নং ওয়ার্ডের বন্দরের ছালেহনগর এলাকার মৃ’ত আব্দুল আজিজ ওরফে তোতা মিয়ার স্ত্রী মমতাজ বেগম।

কবিরাজ: তপন দেব,সাধনা ঔষধালয় । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

মমতাজ বেগমের তিন ছেলে ও দুই মেয়ে। এদের মধ্যে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে ফ্রান্স প্রবাসী। বড় ছেলে মমতাজ আহমেদ মতি ও মেজো ছেলে ইমতিয়াজ আলী, মেয়ে রানু ও রোজি ফ্রান্সে বসবাস করছেন দীর্ঘদিন যাব’ত। ছোট ছেলে বাবর আলী ওরফে রজ্জব দেশেই থাকেন।

তিন বছর আগে আব্দুল আজিজ মিয়া মা’রা যান। এরপর মমতাজ বেগমের ওপর চালু হয় নানারকম নি;র্যা;ত;ন। ছোট ছেলে রজ্জব ভরণপোষণের কথা বলে ইতোমধ্যে মমতাজ বেগমের কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে রুপালী আবাসিক এলাকায় বাড়ি নির্মাণ করছেন।

মমতাজ বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমা’র কাছ থেকে ছোট ছেলে রজ্জব মাসে ১০০০ টাকা করে দেওয়ার কথা বলে নগদ ১০ লাখ টাকা নিয়ে যায়। আমি ডিপিএস ভেঙে এই টাকাগু’লো ওকে দেই। পরে ভরণপোষণের জন্য টাকা চাইলে আমা’র ওপর অমা’নুষিক ও অমান’বিক নি;র্যা;ত;ন চালায় রজ্জব। লোকল’জ্জার ভ;য়ে অনেক দিন আমি চুপ থেকেছি।

কিন্তু শেষমেশ সহ্য করতে না পেরে থা’নায় অ’ভিযোগ করতে বাধ্য হয়েছি। তিনি বলেন, আমা’র ছোট মেয়ে ফাহিমা আক্তার রোজী আমা’র কাছ থেকে জায়গা কিনার কথা বলে ১৩ লাখ টাকা নেয়, তার কাছেও পাওনা টাকা চাইলে সে আমাকে গ;লা;চে;পে ধ;রে এবং নি;র্ম;ম নি;র্যা;ত;ন করে। আমি পঞ্চায়েতের মাধ্যমে একবার সালিশ বসিয়েও এ বি’ষয়ে কোনো সুরাহা পাইনি।

বর্তমানে আমি আমা’র বড় ছেলের বাসায় থাকছি। ছোট ছেলে রজ্জব কোন ভরণপোষণের টাকা-পয়সা দিচ্ছে না। এমনকি আমা’র পাওনা ১০ লাখ টাকা ও আ’ত্মসাৎ করেছে। আমি জীবনের শেষ সময়ে এসে বহু ক’ষ্টে দিনযাপন করছি। প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকার ওষুধ লাগে।

মমতাজ বেগম বলেন, মাসখানেক আগে ছোট ছেলে রজ্জব আমা’র পায়ে শি;ক;ল দিয়ে বেঁ;ধে নি;র্যা;ত;ন করে ট;য়;লে;টে আ;ট;কে রাখে। পরে রাতে গোপ’নে অ্যাম্বুলেন্সে করে শি;ক;ল বাঁ;ধা অবস্থায় ঢাকা শ্যামলী এলাকার সেফ হাউস নামে একটি রিহ্যাব’ সেন্টারে পাগল সাজিয়ে রেখে আসে। পরে বড় ছেলে প্রবাসে থেকেই আমাকে বিভিন্ন লোকের মাধ্যমে সেখান থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসে।

কবিরাজ: তপন দেব,সাধনা ঔষধালয় । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

এ ব্যাপারে মমতাজ বেগমের ছোট ছেলে রজ্জব বলেন, আমা’র মাকে আমি নি;র্যা;ত;ন করেছি না কী করেছি, তা আমি বুঝবো; তাকে তো শুধু পাগলামির জন্য পি;টি;য়ে;ছি। প্রয়োজন হলে আবারো মে;রে পাগলা গারদে পাঠাব।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *