করোনায় মৃত মালিকের সান্নিধ্য পেতে গরুর আকুতি, বাগেরহাটের যে ছবি কাঁদাচ্ছে সবাইকে

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বিপ্লব বড়ুয়া। তাকে সৎকারের জন্য কাছে আসেনি কেউ। এ অবস্থায় বিরল ভালোবাসা দেখিয়েছে তার পালিত গরু। বিপ্লবের লাশের চারপাশে ঘুরছিল গরুটি। একটু পর পরই লাশের গায়ে মুখ ঘষছিল প্রাণীটি। দূরে দাঁড়িয়ে অবাক হয়ে সে দৃশ্য দেখছিল সবাই।

বৃহস্পতিবার বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের কালিকাবাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মালিকের প্রতি গরুর এমন ভালোবাসার কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা কাঁদাচ্ছে সবাইকে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কালিকাবাড়ী শ্মশানঘাটে বিপ্লব বড়ুয়ার লাশ রেখে যান স্বজনরা। করোনা আতঙ্কে লাশের কাছে যায়নি কেউ। তখন লাশের চারপাশে ‍ঘুরতে থাকে তার পালিত গরুটি। বাধ্য হয়ে গরুটিকে তাড়িয়ে পিপিই পরে লাশ সৎকার করে স্থানীয়রা।

ঘটনাস্থলে আসা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুজ্জামান জসিম বলেন, করোনায় মৃত মালিকের কাছে এসে ভালোবাসা প্রকাশ করলো গরুটি। যেখানে মৃত ব্যক্তির কাছে যেতে আপনজনরাই অনীহা প্রকাশ করেছে, সেখানে গরুটি যে শিক্ষা দিলো- তা থেকে অনেক কিছুই শেখার আছে আমাদের।

করোনায় মৃত মালিকের লাশ পড়ে আছে শ্মশানে, একটু পর পর লাশের গায়ে মুখ ঘষছে পালিত গরুটি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বিভাগের অধ্যাপক সরদার শফিকুল ইসলাম বলেন, মানুষের প্রতি অবলা প্রাণী যে ভালোবাসা দেখায় তার পেছনে কিন্তু মানুষেরই অবদান।

কারণ, বোবা প্রাণীগুলো ভালোবাসা পায় বলেই ভালোবাসার প্রতিদান দেয়। মোংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জীবিতেষ বিশ্বাস বলেন, ২৬ জুন বিপ্লব বড়ুয়ার করোনা শনাক্ত হয়। এরপর খুলনার একটি হাসপাতালে ভর্তি করলে বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) তার মৃত্যু হয়।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

বিপ্লব বড়ুয়ার বাবা বিনদ মন্ডল বলেন, আমার ছেলে করোনায় মারা যাওয়ায় শেষকৃত্যের কাজে কেউ আসেনি। বিষয়টি জানতে পেরে পৌর আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান জসিম পিপিই, হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে আসেন। এরপর লাশ সৎকার করা হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *