বৃষ্টিতে ১৫ লাখ টাকার চেক কুড়িয়ে পেয়ে মালিককে ফিরিয়ে দিলেন এসআই মিনারুল ইসলাম।

বৃষ্টির মধ্যেই লকডাউন কার্যকরে দায়িত্ব পালন করছিলেন এসআই মিনারুল ইসলাম। হঠাৎ সড়কে পড়ে থাকা একটি ট্রেজারি চেক তার নজরে আসে। যেখানে উল্লেখ রয়েছে ১৪ লাখ ৮৫ হাজার টাকার কথা। চেকটি ফিরিয়ে দিতে প্রকৃত মালিকের খোঁজে পোস্ট দেওয়া হয় ফেসবুকে। এরপর যথাযথ প্রমাণ সাপেক্ষে প্রকৃত মালিকের কাছে চেকটি হস্তান্তর করা হয়।

মিনারুল ইসলাম জয়পুরহাট সদর থানার এসআই হিসেবে কর্মরত। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জয়পুরহাট শহরের প্রধান সড়কের শহিদ ডা. আবুল কাশেম ময়দানের সামনে রাস্তায় চেকটি পান মিনারুল।

ঘটনার পর চেকটির প্রকৃত মালিককে খুঁজতে জয়পুরহাট থানা নামে ফেসবুক আইডি থেকে একটি পোস্ট দেয় পুলিশ। পোস্টের পর প্রকৃত মালিককে খুঁজে পেয়ে তার কাছে চেকটি হস্তান্তর করা হয়েছে।

এসআই মিনারুল ইসলাম বলেন, চলমান লকডাউনে দায়িত্ব পালনের সময় একটি চেক পাই। সেসময় বৃষ্টি হচ্ছিল, তাই চেকটিও কিছুটা ভেজা ছিল। পরে বিষয়টি ওসিকে জানানো হয়। পরে তিনি প্রকৃত মালিকের কাছে চেকটি হস্তান্তর করেন।

জয়পুরহাট থানার ওসি একেএম আলমগীর জাহান বলেন, নিজের দায়িত্বে পালনের সময় চেকটি পান এসআই মিনারুল ইসলাম। আমরা চেকটির প্রকৃত মালিককে খোঁজার জন্য ফেসবুকে একটি পোস্ট দেই। পরে যথাযথ প্রমাণ সাপেক্ষে প্রকৃত মালিকের কাছে চেকটি হস্তান্তর করা হয়।

হারানো চেক পাওয়ার পর মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, একটি দফতর থেকে চেকটি নিয়ে আসছিলাম। সেসময় বৃষ্টি হচ্ছিল। পথে একজন আমাকে কল দিলে মোবাইলটি রেইনকোর্টের পকেট থেকে বের করার সময় অজান্তে চেকটি পড়ে যায়। ব্যাংকে গিয়ে তা আর খুঁজে না পেয়ে চিন্তায় পড়ে যাই।

কবিরাজ: তপন দেব,সাধনা ঔষধালয় । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

পরে থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ জানায় চেকটি তাদের কাছে রয়েছে। যথাযথ প্রমাণের পর তারা আমার কাছে চেকটি হস্তান্তর করে। আমি ভাবতেই পারিনি চেকটি আর ফিরে পাব। আমি পুলিশের প্রতি চিরকৃতজ্ঞ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *