আমি কাকে বাবা বলে ডাকবো, মাকে আমি কী বলে বোঝাবো।

মগবাজার ওয়্যারলেস এলাকায় বি’স্ফো’রণের ঘটনায় একমাসের মেয়েকে রেখে মা’রা গেছেন সৈকত স্বপন নামের এক ব্যক্তি। স্বপনের বড় ছেলে বিশালের কান্নায় ভারী হয়ে উঠেছে হাসপাতাল।

কান্নারত বিশাল মাটিতে লুটিয়ে আহাজারি করে বলছেন, আমি কাকে বাবা বলে ডাকবো। মাকে আমি কী বলে বোঝাবো। আমা’র ছোট বোন কাকে বাবা বলে ডাকবে। মাকে আমি কীভাবে বলবো, তুমি নেই। ছোট বোনটা তোমাকে এক নজর দেখতে পারলো না।

প্রাইভেটকার চালক সৈকত স্বপন মগবাজারের চেয়ারম্যান গলিতে থাকেন। চলতি মাসে তিনি কন্যা সন্তানের বাবা হন। এছাড়া তার আরো দুইজন ছেলে সন্তান আছে। সন্ধ্যায় ওই সড়কে যাওয়ার পথে তিনিও আগু’নে দগ্ধ হন। তাকেও মুমূর্ষু অবস্থায় নেয়া হয়েছে শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটে।

রোববার সন্ধ্যায় সাড়ে ৭টায় মগবাজার ওয়্যারলেস এলাকায় সড়কে যাওয়ার পথে বি’স্ফো’রণে দগ্ধ হন স্বপন। তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউটে ভর্তি করা হয়। ভর্তির প্রায় দেড় ঘণ্টা পরে তিনি মা’রা যান। হাসপাতালে স্বপনসহ আরো তিনজন মা’রা গেছেন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইন্সটিটিউট প্রধান সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন সাংবাদিকদের তিনি বলেন, মগবাজার ওয়্যারলেস এলাকায় বি’স্ফো’রণের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত দুজন মা’রা গেছেন এবং তিনজনের অবস্থা আশ’ঙ্কাজনক।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

আশ’ঙ্কাজনক তিনজনের মধ্যে দুইজনকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। তাদের ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। বাকি ১৫ জুন চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন‌। এদের কারো পা-হাত ভেঙেছে, কারো মাথায়, চোখে-মুখে গু’রুতর আঘা’ত লেগেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *