জেনে নিন-পুড়িয়ে মারা সেই নুসরাতের ভাইকে নিয়ে ‘নতুন ষড়যন্ত্র।

ফেনীর সোনাগাজীতে আগু’নে পু’ড়িয়ে হ’ত্যার শি’কার মা’দ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির ছোটভাই রাশেদুল হাসান রায়হানকে নিয়ে নতুন ষ’ড়যন্ত্র শুরু করেছে একটি সং’ঘব’দ্ধ চক্র। আর তাই জীবনের নিরাপ’ত্তা চেয়ে সোনাগাজী মডেল থা’নায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছেন তিনি। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি এই জিডি দায়ের করেন।

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন- এক নারীর ছ’বিকে ‘বিকৃত করে তার ছবির সঙ্গে সংযুক্ত করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাকে ও তার পরিবারকে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সং’ঘব’দ্ধ চক্র।

নায়েব আলী নামে একটি ফেসবুক আইডিতে ‘বিকৃত ছবি সংযুক্ত করে লেখা হয়েছে- সোনাগাজীতে গৃহবধূকে প্রেমের ফাঁ’দে ফেলে গোপ’নে আপ’ত্তিকর ভিডিও ধারণ করে তা প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে প্রবাসী স্বামীর কাছে দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করল নুসরাতের ভাই প্রতারক রায়হান। বিস্তারিত আসছে…।

এভাবে ফেসবুকের বিভিন্ন আইডিতে তাকে জড়িয়ে আপ’ত্তিকর ছবি দিয়ে তাকে ও তার পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সং’ঘব’দ্ধ চক্র। এমতাবস্থায় তিনি জীবনের চরম নিরাপ’ত্তাহীনতায় রয়েছেন। এ বি’ষয়ে সোনাগাজী থা’নার ওসি (তদ’ন্ত) আব্দুর রহিম সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমর’া তার বি’ষয়টি খতিয়ে দেখছি।

উল্লেখ্য, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মা’দ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে ২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল হাত-পা বেঁধে আগু’ন ধরিয়ে দেয় দু’র্বৃত্তরা। ১০ এপ্রিল সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃ’ত্যুবরণ করে। ৮ এপ্রিল তার বড়ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থা’নায় মাম’লা দায়ের করেন।

২০১৯ সালের ২৪ অক্টোবর ফেনীর নারী ও শিশু নি’র্যা’তন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর র’শিদ ১৬ জন আ’সামির মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আদেশ দেন। মাম’লাটি উচ্চ আ’দালতে আপিল বিভাগে শুনানির অ’পেক্ষায় রয়েছে।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- আমাদের এখানে নারী ও পুরুষের সকল #যৌন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

নুসরাত হ’ত্যার পর থেকে নুসরাতের পরিবারের সদস্যদের নিরাপ’ত্তার জন্য তার বাড়িতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পালাক্রমে ৩-৪ জন পুলিশ সদস্য নুসরাতের বাড়িতে নিরাপ’ত্তায় নিয়োজিত রয়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *