হেফাজতের বিরু’দ্ধে ৪৫ মাম’লা , আসা’মি ৩৫ হাজার, গ্রেফ’তার ৩৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তা’ণ্ডবের ঘটনায় প্রায় প্রতিদিনই মাম’লা হচ্ছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার (০৬ এপ্রিল) সদর থানায় আরও ছয় মাম’লা হয়। সব মিলিয়ে মাম’লার সংখ্যা ৪৫। অন্যদিকে এসব মাম’লায় আসা’মির সংখ্যা ৩৫ হাজারের বেশি। তবে গ্রেফ’তার করা হয়েছে মাত্র ৩৩ জনকে। এদের মধ্যে অবশ্য হেফাজতে ইসলামের কোনও নেতা কিংবা মাদ্রাসা ছাত্র নেই।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও পুরুষের সকল #যৌ’ন_রোগ সহ জটিল ও কঠিন রোগের সু চিকিৎসা করা হয়।
বিঃ দ্রঃ আমাদের এখান থেকে দেশে ও বিদেশে কুরিয়ার করে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০

উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে গ্রেফ’তার করা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ভাঙচুর করা আরমান আলিফ নামে এক যুবককে। র‌্যাব-১৪ এর একটি দল বিদেশি পিস্তলসহ তাকে গ্রেফ’তার করে। এর আগে ম্যুরাল ভাঙচুরের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ভিডিও ফুটেজ ও স্থির ছবি দেখে হাম’লা কা’রীদের শনাক্ত করা হচ্ছে। এরইমধ্যে বেশ কয়েকজনকে শনাক্ত করে তাদেরকে গ্রেফ’তারের চেষ্টা চলছে। হেফাজত নেতা-কর্মীদের বিরু’দ্ধে হাম’লায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরু’দ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পুলিশ ও মাম’লার নথিপত্র সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঘটে যাওয়া তা’ণ্ডবে ৪৫টি মাম’লার মধ্যে সদর থানায় ৪০টি, আশুগঞ্জ থানায় ২টি, সরাইল থানায় ২টি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে অ’গ্নি সংযো’গের ঘটনায় আখাউড়া রেলওয়ে থানায় ১টি মাম’লা করা হয়।

৪৫ টির মধ্যে ৬টি মাম’লায় ১৩৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। বাকি সবাই ‘অজ্ঞাতনামা দু’ষ্কৃ’তি কারী। কোনও কোনও মাম’লায় ‘অজ্ঞাতনামা কওমি মাদ্রাসাছাত্র-শিক্ষক ও তাদের অনুসারী দু’ষ্কৃ’তি কারীদের’ কথা উল্লেখ করা হয়। তবে কোনও মাম’লাতেই হেফাজতের কোনও নেতাকর্মীর নাম নেই।

মাম’লা ও গ্রেফ’তার সংক্রান্ত বিষয়টি জেলা পুলি’শের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা ইমতিয়াজ আহমেদ নিশ্চিত করেন।

সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা মনে করেন, বিচার হী’নতার সংস্কৃতির কারণেই প্রতিনিয়ত বাড়ছে তা’ণ্ডবের মাত্রা। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে প্রয়োজন সকলের সমন্বিত প্রয়াস। পাশাপাশি সরকারের ব্যাপক ভূমিকা রাখার কথাও বলছেন তারা। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক আবদুন নূর একের পর এক ঘটনার জন্য বিচারহীনতার সাংস্কৃতিকে দায়ী করেছেন।

তিনি মনে করেন, আগের ঘটনাগুলোর বিচার হলে একই শক্তি আবারো এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে সাহস পেতো না।
সুর সম্রাট ওস্তাদ দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনের সাধারণ সম্পাদক মনজুরুল আলম বলেন, ‘২০১৬ সালের ১২ জানুয়ারিও এখানে অ’গ্নি সংযো’গ করা হয়। সে ঘটনার বিচার হয়নি। ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর পাকিস্তান আমলে মৌলবাদ সরকার ক্ষমতায় থাকলেও দেশ স্বাধীনের আগে এ ধরণের ঘটনা ঘটেনি। এবারের ধ্বংসযজ্ঞে গান পাউডার ব্যবহার করা হয়। এসব থেকে বোঝা যায়, এটা পরিকল্পিত হাম’লা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাহিত্য একাডেমির সভাপতি কবি জয়দুল হোসেন বলেন, ‘৭১ এর মতো বর্বরোচিত তা’ণ্ডব চালানো হয়েছে। বেছে বেছে সরকারি অফিসের পাশাপাশি সংস্কৃতি অঙ্গনে হাম’লা চালানো হয়। এ হাম’লা পূর্ব পরিকল্পিত। এর আগে এ ধরণের হাম’লার কোন বিচার পাওয়া যায়নি।

গত ২৬, ২৭ ও ২৮ মার্চের ঘটনার আগে সর্শেষ ২০১৬ সালের ১২ জানুয়ারি মাদ্রাসা ছাত্রদের তা’ণ্ডবে রেলওয়ে স্টেশন, সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গন, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের অফিস ভাঙচুর করা হয়। ২০০১ সালে ফতোয়াবিরোধী আন্দোলনে মারা যায় ছয় জন।

তখন আন্দোলন হলেও এতটা তা’ণ্ডব হয়নি। কয়েক বছর আগে একটি কনসার্ট আয়োজনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা দেখা দিলেও কোনও ধরণের নাশকতা হয়নি। তবে এসব ঘটনায় বেশ কিছু মাম’লা হলেও একটিরও তদন্ত বা বিচার হয়নি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *