Categories
Uncategorized

দীর্ঘ’স্থায়ী সহ’বাস করার উ’পায়

যৌ’ন মিলন দীর্ঘ’স্থায়ী করতে সব পুরুষই চায়। প্রত্যেকটি পুরুষ চায় পরিপূর্ণ ভাবে যৌ’ন মি’লন করতে। তবে নানান রকম কারণে মানুষের যৌ’নস্বাস্থ্য এবং যৌ’ন মিলন করার ক্ষ’মতা নষ্ট হয়ে যায়। পৃথিবীতে অধিকাংশ দম্পতিই কোনো না কোনো এক সময় এই অভিযোগটা করেন, যে বিয়ের কিছু বছর পরেই পরস্পরের প্রতি আকর্ষণ হারিয়ে যায়। একদিনে নিঃশেষ হয়ে যায় না; নিঃশেষ হতে থাকে ধীরে ধীরে এবং ক্রমশ।

বিশেষ করে স্বামীরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন স্ত্রীদের প্রতি। আবার স্ত্রীরাও আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন স্বামীর প্রতি। আর ফলাফল হয় পর’কীয়া! সংসার ভাঙু’ক বা না ভা’ঙুক, সম্পর্ক ঠিকই ভাঙে। কিন্তু কখনো কি ভেবেছেন এমন কেন হয়? দুটো মানুষ পরস্পরকে খুব ভালোবেসে বিয়ে করলেও কেন হারিয়ে যায় আকর্ষণ? কেন হারিয়ে যায় স্বাভাবিক মি’লন করার মন মানসিকতা আর কিভাবেই তা ফিরে পাওয়া যায়?

অধিক সময় সহবাস করার পদ্ধতি : ফরাসি যৌ’ন বিজ্ঞানীরা যৌ’নক্ষ’মতা কে দুটি সুনির্দিষ্ট ভাগে ভাগ করেছেন। তারা এক শ্রেণিকে বলেছেন অর্থাত্‍ আমার যখন ইচ্ছা তখনই আমি যৌ’ন মিল’ন এ অংশগ্রহণ করতে পারি। দ্বিতীয় শ্রেণী বলেছেন আমি মিলনে অংশগ্রহণ করতে পারি যখন আমার মধ্যে যৌ’নক্ষ’মতা বজায় থাকে। সাধারণতঃ ১৬ থেকে ৩৮ বছর বয়সের মধ্যে, কখনো কখনো ৪০-৪৫ বছর বয়স পর্যন্তও একজন পুরুষ দিন বা রাত্রি যে কোন সময়।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

যখনই ইচ্ছা যৌ’ন মিল’ন করতে প্রবৃত্ত হতে পারেন। এই যৌ’ন মিলন করার জন্য তিনি ইচ্ছা করলে রতিলী’লার দ্বারা নিজেকে উত্তেজিত করে নিতে পারেন অথবা রতিলী’লাকে বাদও দিতে পারেন। এই মিলনে তার স্ত্রী স’ঙ্গীর ইচ্ছা বা আধা ইচ্ছাও থাকতে পারে এবং যে কোন অবস্থায়, যে কোনো ভঙ্গিতে এবং যে কোন অবস্থানে চাইলে এরা মি’লন করতে পারেন। চল্লিশ বা পঞ্চাশোরধ ব্যক্তিরা মিল’নের সময় এবং সযন্তে নির্বাচন করে নিলেও সব সময় মিলনে অংশ গ্রহণ করতে পারে না।

বয়স যত বাড়তে থাকে, যৌ’ন মিল’নের বিরতির সময় ততই দীর্ঘ হতে থাকে। এই বয়সে মিল’নে প্রবৃত্ত হতে গেলে এরা রতিলী’লার দ্বারা তীব্রভাবে উত্তেজনা লাভের প্রয়োজন অনুভব করেন। শুধু রতিলীলায় অভিজ্ঞ, ধৈর্যশীল এবং তীব্র যৌ’ন আক’র্ষণ সম্পন্ন ব্যক্তিরা। মিলন সঙ্গীর এইসব দৈহিক এবং চরিত্রগুণ এই বয়সের পুরুষের যৌ’ন মিল’নের অন্যতম প্রধান সহায়ক। এমন বহু বয়স্ক আছেন, যারা অপরিচিত এবং অসহযোগী না’রীর সান্নিধ্যে এলে যৌ’ন অক্ষম হয়ে যান।

কিন্তু স্ত্রীর কাছে এলে মিল’নে সহজে অংশ গ্রহণ করতে পারেন। আবার স্ত্রীর বয়স বেশী হওয়ার জন্য অথবা কোন অসুখ-বিসুখের ফলে দৈ’হিক স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যাওয়া এইসব স্বামীরা যৌ’ন মিল’ন করতে অক্ষম হয়ে যান। পুরুষের বেশী বয়সে যৌ’ন অক্ষম হয়ে যাওয়ার মূলে যেসব কারণ আছে, এই কারণটি তার মধ্যে একটি অন্যতম প্রধান কারণ।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

সাধারণত অধিক সময় নিয়ে যৌ’ন মিলন করাটা পুরুষের সক্ষমতার উপরই নির্ভর করে। তথাপি কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে পুরুষরা তাদের মিলন কাল দীর্ঘায়িত করতে পারেন। তবে কে কতটা দীর্ঘ সময় নিয়ে যৌ’ন মিলন করবে এটা অনেকটাই তাদের চর্চার উপর নির্ভর করে থাকে।
এবং প্রত্যেকটি পুরুষ মাজে মধ্যে কবিরাজী ঔষধ খাওয়া দরকার।

Categories
Uncategorized

১৫ বছরের ছেলেটা আমায় অশ্লী’লভাবে ছুঁতে থাকে, নিজেকে ঠিক রাখতে পারিনি

সুস্মিতা সেন বলিউড থেকে বহুদিন আগেই বিদায় নিয়েছেন। তবুও তাঁর জনপ্রিয়তা আজও শীর্ষে। তাঁকে অসংখ্য মহিলারা অনুপ্রেরণা হিসাবে দেখে।

সুস্মিতার কথা বলা, তাঁর জীবন, তাঁর সিদ্ধান্ত, প্রতিটি পদক্ষেপই মহিলা পুরুষ নির্বিশেষে সকলকেই জীবনের কঠিন মুহূর্তে এগিয়ে যেতে শেখায়।
কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

২০১৭ সালে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে গিয়েছিলেন সুস্মিতা সেন। আশপাশে ছিলেন একাধিক দেহরক্ষী। যারা অত্যন্ত সন্তর্পণে সুস্মিতাকে রক্ষা করে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )
তবুও ভিড়ের মাঝে সেলফি নেওয়ার জন্য ঝাঁপাঝাপি করতে থাকে অনেকেই। সেই সুযোগই নিয়ে বসেছিল একটি ছেলে।

ভিড়ের মাঝে সুস্মিতাকে অশা’লীনভাবে ছোঁয়ার চেষ্টা করেছিল সেই ছেলেটি। সুস্মিতা তাঁকে তৎক্ষণাৎ ধরে ফেলতেই নিমেষে পাল্টে গেল পরিস্থিতি।

সাংঘাতিক ভিড়। বঙ্গতনয়া, মিস ইউনিভার্সকে চোখের দেখা দেখতে কে না চায়। এই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে বসে একটি ১৫ বছর বয়সী ছেলে।

যে ভিড়ের মাঝে দেহরক্ষীদের টপকে ঢুকে পড়ে। এবং সুস্মিতার একেবারে নিকটে চলে আসে। সাধারণত সেলফি তুলতে আসার জন্যই এমন সাহসিকতা দেখায় ভক্তরা।

তবে সেই পনেরো বছরের ছেলেটির উদ্দেশ্য ছিল সুস্মিতাকে অশ্লীলভাবে ছোঁয়ার। তবে এই বয়সেই নিজেকে ওয়ার্ক আউটের মাধ্যমে মেনটেন করা সুস্মিতা কারও থেকে কম যান না।

নিজের তৎপরতার কারণে তিনি বুঝতে ছেলেটি সুস্মিতার দু’টি পায়ের মাঝে ছোঁয়া চেষ্টা করছে। সঙ্গে সঙ্গে ধরে ফেলেন ছেলেটির হাত। তারপরই চমকে যান তিনি।আশা করেননি একটি পনেরো বছরের ছেলেকে তিনি এমন অবস্থায় ধরবেন।

ছেলেটিকে ধরতেই গলা ধরে হাঁটতে হাঁটতে একপাশে নিয়ে যান। এবং বলেন, “আমি যদি এখন পুলিশ কাছারি করি তাহলে তোমার জীবন নষ্ট হয়ে যাবে।” সঙ্গে সঙ্গে ছেলেটি বলতে থাকে সে কিছু করেনি।

সুস্মিতার চাপাচাপি করায় সে স্বীকার করে নিজের ভুল। এবং কথা দেয় সে আর কখনও এমন কাজ করবে না। যদিও সুস্মিতা তাকে খানিক হালকা হুমকিও দেন।

ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করলে তিনি ছেলেটির মুখ চিনে রেখেছেন। সেই সময় সঠিক পদক্ষেপ নিতে তাঁর এক ফোঁটাও সময় লাগবে না। সুস্মিতা এভাবেই জনসমক্ষে হেন’স্তা থেকে বেঁচেছিলেন।

Categories
Uncategorized

এক মহামা’রির নাম পর’কী’য়া’ পর’কী’য়া ঠেকাতে ১০ নির্দেশনা

বর্তমান সময়ে এক মহামা’রির নাম পর’কী’য়া। পর’কী’য়ার কারণে সংসারে অশান্তি-ভাঙ্গন এমনকি জঘন্য হ’ত্যাকা’ণ্ডও সংঘটিত হচ্ছে। নারী-পুরুষ উভ’য়েই এ পর’কী’য়ায় জ’ড়িত। বিশেষ করে অনেক মানুষ স্ত্রী’-সন্তান-পরিবারের জন্য প্রবাসে থাকে। ফলে অনেক সময় এসব প্রবাসীর স্ত্রী’রা পর’কী’য়া, অ’বৈধ স’ম্পর্ক ও জেনা-ব্যভিচারে জ’ড়িত হয়ে পড়ে। স্বামী প্রবাসে কিংবা জীবিকার তাগিদে দূরে কোথাও অবস্থান করা সেসব স্ত্রী’রা কী’ভাবে নিজেদের জেনা-ব্যভিচার ও পাপাচার থেকে নিজেকে রক্ষা করবে? এ থেকে বেঁচে থাকতে নারীদের করণীয়ই বা কী’?

ইস’লামের দৃষ্টিতে নারী-পুরুষ সবার জন্য পর’কী’য়া ও জেনা-ব্যভিচার অ’ত্যন্ত জঘন্য গোনাহের কাজ। এটি কবিরা গোনাহ, মা’রাত্মক দ’ণ্ডনীয় অ’প’রাধ এবং ঘৃণিত কাজ। ইস’লামে যত দ’ণ্ডনীয় যত শা’স্তি আছে, এরমধ্যে জেনা-ব্যভিচার তথা পর’কী’য়ার শা’স্তিই সবচেয়ে কঠিন ও মা’রাত্মক। স্বাক্ষী প্রমাণ সাপেক্ষে এ অ’প’রাধের দুইটি শা’স্তি। একটি হলো- অবিবাহিত অ’প’রাধীর জন্য সর্বশক্তি প্রয়োগে ১০০ বেত্রাঘাত ও এক বছরের জন্য নির্বাসন তথা জে’ল।

আর বিবাহিত অ’প’রাধীর জন্য পাথর নিক্ষেপে মৃ’ত্যু নিশ্চিত করা। সুতরাং স্বামী দেশে থাকুক বা বিদেশে থাকুক স্ত্রী’ যদি পর’কী’য়ায় লিপ্ত হয় তাহলে সে গোনাহগার হওয়ার পাশাপাশি শা’স্তিযোগ্য অ’প’রাধে অ’প’রাধী বলে গণ্য হবে। প্রবাসী পুরুষের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য।
স্ত্রী’দের জন্য যে ১০ দিকনির্দেশনা শরিয়তের দৃষ্টিকোন থেকে ইস’লামিক স্কলারদের মতামতের ভিত্তিতে মা’রাত্মক অ’প’রাধ পর’কী’য়া, জেনা-ব্যভিচার থেকে নিজেদের রক্ষা করতে নারীদের জন্য রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনা।

স্বামীর সঙ্গে থাকা স্ত্রী’ যদি প্রবল আশ’ঙ্কা করে যে, স্বামীর অনুপস্থিতিতে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবে না বা জেনা-ব্যভিচার ও পাপাচারে জড়িয়ে পড়বে; তাহলে শরিয়তের দৃষ্টিতে স্বামীর কাছে তার এ দাবি করার অধিকার আছে যে- – হয় সে (স্বামী) তাকে (স্ত্রী’কে) সঙ্গে করে বিদেশে নিয়ে যাবে। অথবা – স্বামী তাকে রেখে একাকি বিদেশ বা দূরের সফর থেকে বিরত থাকবে। কারণ বিয়ের অন্যতম উদ্দেশ্য হল, নিজের ইজ্জত-সম্ভ্রম হেফাজত করা এবং গোনাহের কাজ থেকে নিজেকে রক্ষা করা।

খোলা তালাক নেয়া স্বামী যদি স্ত্রী’র দাবি, একসঙ্গে থাকার পরাম’র্শ বা নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে অর্থ উপার্জনের উদ্দেশ্যে প্রবাসে কিংবা দূরে কোথাও গমন করে তাহলে স্ত্রী’র জন্য ‘খোলা তালাক’ নেয়া জায়েজ আছে। এতে স্বামীর প্রবাসে কিংবা দূরে অবস্থানের কারণে বিয়ের অন্যতম মূল উদ্দেশ্য ব্যাহত হয় এবং নারীর ঈ’মান ও চরিত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয় কিংবা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনার আশংকাই বেশি।

খোলা তালাক : কোনো কিছুর বিনিময়ে স্ত্রী’ নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে নেয়াই হলো খোলা তালাক। এক্ষেত্রে স্বামী সে বিনিময়টি গ্রহণ করে স্ত্রী’কে বিচ্ছিন্ন করে (তালাক) দেবে। এ বিনিময় হতে পারে স্বামীর দেয়া মোহরানার টাকা কিংবা এর চেয়ে বেশি সম্পদ কিংবা কম। > আমল করা প্রবাসীর স্ত্রী’র জন্য যদি উপরোল্লেখিত কোনোটিই সম্ভব না হয় তবে- – ধৈর্য ধারণ করবে, – নিয়মিত নফল রোজা রাখবে; বিশেষ করে সোম ও বৃহস্পতিবার এবং আরবি মাসের ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখের আইয়্যামে বিজের রোজা রাখা।

এবং – কুরআন তেলাওয়াত ও অধ্যয়ন, ইস’লামিক জ্ঞানার্জন, সাংসারিক ও অন্যান্য উপকারী কাজকর্মসহ নিজেকে ইবাদত বন্দেগি ব্যস্ত রাখার চেষ্টা করা। > স্বামীর সঙ্গে যোগযোগ রাখা নিয়মিত স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে একে অ’পরের প্রতি সুস’ম্পর্ক ও ভালোবাসা অটুট রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রাখা। অশ্লীল বিনোদন পরিহার করা নাট’ক, সিনেমা, গান-বাজনা, অশ্লীলতা ও অসৎসঙ্গ তথা যৌ’ন উত্তেজক সব মাধ্যম থেকে নিজেকে দূরে রাখা। কারণ যৌ’ন উত্তেজক এসব বিষয়গুলো মানুষের মনে কু-প্রবৃত্তি ও কামনা-বাসনার আকাঙ্ক্ষাকে বাড়িয়ে দেয়।

সুতরাং তা থেকে বিরত থাকা খুবই জরুরি। > গায়রে মাহরাম থেকে দূরে থাকা মাহরাম নয়, এমন পরপুরুষের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাত ও যোগাযোগ না রাখা। কেননা চারিত্রিক নির্মলতা ও মানসিক পবিত্রতা রক্ষায় এটি খুবই জরুরি। বিশেষ করে স্বামী অনুপস্থিতিতে- স্বামীর বা নিজের নিকটাত্মীয় তথা- দেবর, ভাসুর, চাচাতো ভাই, ফুফাতো ভাই, মামাতো ভাই, খালাতো ভাই, ভগ্নিপতি (দুলাভাই) বেয়াই ইত্যাদি ব্যক্তিকে নিজ ঘরে প্রবেশের সুযোগ না দেয়া। প্রয়োজন না থাকলে যোগাযোগ তথা দেখা-সাক্ষাত না করাই উত্তম।

একান্তই প্রয়োজন হলে, পরিপূর্ণ পর্দার সঙ্গে সামনে না এসে পেছন থেকে কথা বলা। কথা বলার ক্ষেত্রে হাসা-হাসি, আবেগ ও কোমল কণ্ঠ পরিহার করাও আবশ্যক। > ফেতনা থেকে দূরে থাকা গায়রে মাহরাম তথা যাদের সঙ্গে দেখা করা হারাম, সেসব পুরুষদের সঙ্গে হাসি, দুষ্টুমি, হাতাহাতি, সামনা-সামনি খেলাধুলা, স্প’র্শ এবং বিনা প্রয়োজনে দৃষ্টিপাত, কথাবার্তা, ফোনালাপ, মেসেজিং, ভিডিও চ্যাটিংসহ কোনো জিনিস-পত্র আদান প্রদান থেকে দূরে থাকা আবশ্যক। কেননা এসব কর্মকা’ণ্ডেরমাধ্যমৈ ফেতনা সংঘটিত হয়।

আর এর মাধ্যমেই পর’কী’য়া, জেনা-ব্যভিচার ও পাপাচারের মতো মা’রাত্মক অ’প’রাধের বীজ অংকুরিত হয়। > বিশ্বস্ত নারীর সঙ্গে থাকা শয়তানের কুমন্ত্রণা ও কু-প্রবৃত্তির তাড়না থেকে বাঁচতে যেসব স্ত্রী’র স্বামীরা প্রবাসে থাকে, তাদের একাকি কোথাও বসবাস না করাই ভালো। যাদের সন্তান আছে, তারা সন্তানদের সঙ্গে রাখবে। সন্তান না থাকলে সম্ভব হলে মা, বোন, বোনের মে’য়ে, ভাইয়ের মে’য়ে, ননদ, শাশুড়ি, মা, বাবা কিংবা আপনসহ নিকটাত্মীয় নারীদের সঙ্গে থাকা উত্তম।

অযথা বাইরে না যাওয়া ঘর কিংবা বাসার বাইরে না যাওয়া। একান্ত প্রয়োজনে কাছাকাছি বাইরে যাওয়ার দরকার হলে, পূর্ণাঙ্গ পর্দা সঙ্গে বের হওয়া এবং যথাযথ দায়িত্ব পালন করা। বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো বেশি খেয়াল রাখা জরুরি। তাহলো- – কোনোভাবেই সুগন্ধি ব্যবহার না করা। যা মানুষকে আকর্ষণ করে। – কোনো সাজ-সজ্জা গ্রহণ না করা। যাতে পরপুরুষের দৃষ্টি আকর্ষন না হয়। – হাত, মুখমণ্ড ও পা ঢেকে রাখা। – বোরকা ও হিজাব চাকচিক্যপূর্ণ না হওয়া।

আল্লাহকে ভ’য় করা সর্বোপরি মহান আল্লাহকে বেশি বেশি ভ’য় করা। জেনা-ব্যভিচার, পাপাচার ও পর’কী’য়ার দুনিয়ার শা’স্তির পাশাপাশি পরকালের জাহান্নামের শা’স্তির কথা অন্তরে জাগ্রত রাখা। স্বামীর আবেগ ও ভালোবাসাপূর্ণ কথাগুলো বেশি বেশি স্ম’রণ করা এবং স্বামী ও নিজের জন্য আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করা। বিবাহিত ও অবিবাহিত সব মুমিনা নারীদের উচিত কুরআন সুন্নাহ নির্দেশিত শৃঙ্ক্ষলিত জীবন যাপন করা।

আল্লাহর সাহায্য কামনা করা। আল্লাহ তাআলা মু’সলিম উম্মাহর সব বিবাহিত ও অবিবাহিত নারীদের পর’কী’য়া, জেনা-ব্যভিচার ও পাপাচার থেকে হেফাজত থাকতে ইস’লামি দিকনির্দেশনা মেনে চলার তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণে নিজেদের ইস’লামি জীবন-যাপনে অভ্যস্ত হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Categories
Uncategorized

সবারই উচিত হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর দেখানো পথে চলা’ সঠিক পথে থাকতে নিয়মিত পড়ুন এই দোয়াটি

মুসলমান হিসেবে আমাদের সবারই উচিত হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর দেখানো পথে চলা। আমরা তার উম্মত বা অনুসারী দল। তার দেখানো পথেই আমরা আল্লাহর হুকুম-বিধান মেনে থাকি।

উম্মতদের সঠিক পথ পাওয়ার জন্য হযরত মুহাম্মদ (সা.) দুটি জিনিস রেখে গেছেন। একটি হলো আল্লাহ তায়ালার পবিত্র কুরআন। আর অপরটি হলো তার সুন্নত বা সুন্নাহ।

আমরা সবসময়ই শয়তান দ্বারা প্রভাবিত হই। এজন্য সঠিক পথে থাকতে চাইলেও শয়তানের ধোকায় সাড়া দিয়ে আল্লাহর হুকুম-বিধান ভুলে যাই। আর তাই সঠিক পথের দিশা পেতে নিয়মিত একটি দোয়া পড়তে হবে-

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকাল হুদা ওয়াস সাদাদ।

অর্থ : হে আল্লাহ, আমি আপনার কাছে হিদায়াত ও সরল পথ প্রার্থনা করছি।

হজরত আলী (রা.) বলেন, রাসুল (সা.) আমাকে এই দোয়া পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। (রিয়াদুস সালেহিন, হাদিস : ২৫০)

Categories
Uncategorized

যে স্বামী সকালে ঘুম থেকে উ’ঠে স্ত্রী’’কে ক’মপক্ষে পাঁচ মিনিট জ’ড়িয়ে ধ’রে

স্বামী-স্ত্রী’’ কমপক্ষে- ১. যে স্বামী সকালে ঘুম থেকে উঠে স্ত্রী’’কে কমপক্ষে পাঁচ মিনিট জড়িয়ে ধরে রাখে তাঁর কর্মক্ষেত্রে বিপদের আশংকা থাকে কম। — রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

২.বৌয়েরা ঘরের লক্ষ্মী হয়। এদেরকে যত বেশি ভালোবাসা দেওয়া হয়, তত বেশি সংসারে শান্তি আসে।— হু’মায়ুন আহমেদ।

৩. স্ত্রী’’কে যথেষ্ট পরিমাণে সময় দিন, নাহলে যথেষ্ট পরিমাণে বিশ্বা’স করুন। সংসার আর যু’দ্ধক্ষেত্র মনে হবে না। — সুনীল গঙ্গপাধ্যায়।

৪. সেই পুরুষই কাপুরুষ যে স্ত্রী’’র কাছে প্রে’মিক হতে পারেনি।— কাজী নজরুল ইস’লাম।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

৫.প্রতিদিন একবার স্ত্রী’’কে ” আমি তোমাকে ভালোবাসি ” বললে মা’থার সব দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যায়।— সত্যজিৎ রায়।

৬• স্ত্রী’’কে সপ্তাহে একদিন ফুচকা খাওয়াতে এবং মাসে একদিন ঘুরতে নিয়ে গেলে স্বামীর শরীর স্বাস্থ্য ভালো থাকে।— সম’রেশ মজুম’দার।

৭• অন্য নারীর সাথে পরকী’’য়া করার চেয়ে স্ত্রী’’কে একবেলা পে’টানো ভালো। তবে পে’টানোর পরে তিনগুণ বেশি ভালোবাসা আবশ্যক। — জহির রায়হান।

৮• মন ভালো রাখতে বৌকে ফেসবুক, ফোনবুক, নোটবুক সহ সব ধরণের একাউন্টের পাসওয়ার্ড দিয়ে দিন। — মা’র্ক জুকারবার্গ।

৯• মেয়েদের মনে ভালোবাসা এবং অ’ভিমান দুটোই থাকে বেশি। তাই অ’ভিমানটাকে ভালোবাসার চেয়ে বড় করে দেখা যাবে না। তাই স্বামীদের উচিৎ স্ত্রী’’র সব অ’ভিমান ভালোবেসে ভাঙানো! — ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর।

১০• একটা শি’শুকে দুনিয়ার মুখ দেখাতে মা যে ক’ষ্ট সহ্য করে তা বাবা সারাজীবন ভালোবেসেও শোধ করতে পারে না। তাই প্রত্যেকটা স্বামীর উচিৎ তাঁর সন্তানের মাকে কোনোরকম ক’ষ্ট না দেয়া। — জীবনানন্দ দাশ।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

১১• যু’দ্ধে বিজয়ী হলেই বিপ্লবী হওয়া যায় না৷ প্রকৃত বিপ্লবী তো সেই যে স্ত্রী’’র মনের একমাত্র বীরপুরুষ। — চে গুয়েভা’রা।

১২• স্ত্রী’’র সাথে হাসি ঠাট্টা মজা করা স্বামীর কর্তব্য। — হযরত মোহাম্ম’দ (সঃ)

Categories
Uncategorized

মর’লে এক’সঙ্গে মরব, বাঁচলে এক’সঙ্গে’ স্বামীর দুটি কি’ডনিই ন’ষ্ট, একটি দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন স্ত্রী

বাঁচতে হলে তাকে যেভাবেই হোক একটি কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হবে। কিন্তু কে দেবে কিডনি। এ অবস্থায় চোখে-মুখে যখন অন্ধকার দেখছিলেন রাশিদুল ইসলাম, ঠিক তখনই আশার আলো হয়ে পাশে দাঁড়ালেন স্ত্রী সেতু খাতুন। স্বামীর দুটি কিডনিই নষ্ট হওয়ায় নিজের জীবনের কথা না ভেবে একটি কিডনি দিয়েছেন তিনি।

স্বামীর প্রতি ভালোবাসার অনন্য এই দৃষ্টান্ত গড়েছেন ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার হরিশপুর গ্রামের আনসার সদস্য রাশিদুল ইসলামের স্ত্রী সেতু খাতুন। ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে সবার প্রশংসায় ভাসছেন তিনি।

জানা যায়, প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে হরিশপুর গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে রাশিদুলের সঙ্গে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাতিভাঙ্গা গ্রামের হবিবর রহমানের মেয়ে সেতু খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ভালোই চলছিল তাদের জীবন।

তিন মাস আগে হঠাৎ করে রাশিদুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে পরীক্ষা শেষে তার কিডনি বিকল হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানান। মধ্যবিত্ত পরিবার হওয়ায় নতুন করে কিডনি নেয়ার সামর্থ্য ছিল না তার। মৃত্যুপথযাত্রী স্বামীকে বাঁচাতে তাই এগিয়ে আসেন স্ত্রী সেতু খাতুন।

রাশিদুল ইসলামের চাচাতো ভাই সবুজ হোসেন জানান, গত ১২ নভেম্বর ঢাকার শ্যামলীতে একটি হাসপাতালে তাদের কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়। বর্তমানে স্বামী-স্ত্রী দুজনই সুস্থ আছেন। রাশিদুল ইসলাম আইসিইউতে আর স্ত্রী সেতু জেনারেল বেডে আছেন।

সেতুর মা নুরনাহার বেগম বলেন, আমার মেয়ে আমার জামাইয়ের জন্য যা করেছে তাতে আমরা খুশি। আমি সকলের কাছে দোয়া চাইছি।
হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে সেতু খাতুন বলছিলেন, মা-বাবা পছন্দ করে বিয়ে দিয়েছে। বিয়ের পর আমিও তাকে ভালোবেসে ফেলেছি। আমাদের একটি সন্তান আছে।

তিনি বলেন, বিয়ের পর আমার স্বামীকে বলেছিলাম মরলে একসঙ্গে মরব, বাঁচলে একসঙ্গেই। স্বামী যদি মারা যায় তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচব। তাই আমি আমার স্বামীকে কিডনি দিয়েছি। দুজনকে আল্লাহ যতদিন বাঁচিয়ে রাখেন ততদিন বেঁচে থাকব।

Categories
Uncategorized

দীর্ঘ’স্থায়ী সহ’বাস করার উ’পায়

যৌ’ন মিলন দীর্ঘ’স্থায়ী করতে সব পুরুষই চায়। প্রত্যেকটি পুরুষ চায় পরিপূর্ণ ভাবে যৌ’ন মি’লন করতে। তবে নানান রকম কারণে মানুষের যৌ’নস্বাস্থ্য এবং যৌ’ন মিলন করার ক্ষ’মতা নষ্ট হয়ে যায়। পৃথিবীতে অধিকাংশ দম্পতিই কোনো না কোনো এক সময় এই অভিযোগটা করেন, যে বিয়ের কিছু বছর পরেই পরস্পরের প্রতি আকর্ষণ হারিয়ে যায়। একদিনে নিঃশেষ হয়ে যায় না; নিঃশেষ হতে থাকে ধীরে ধীরে এবং ক্রমশ।

বিশেষ করে স্বামীরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন স্ত্রীদের প্রতি। আবার স্ত্রীরাও আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন স্বামীর প্রতি। আর ফলাফল হয় পর’কীয়া! সংসার ভাঙু’ক বা না ভা’ঙুক, সম্পর্ক ঠিকই ভাঙে। কিন্তু কখনো কি ভেবেছেন এমন কেন হয়? দুটো মানুষ পরস্পরকে খুব ভালোবেসে বিয়ে করলেও কেন হারিয়ে যায় আকর্ষণ? কেন হারিয়ে যায় স্বাভাবিক মি’লন করার মন মানসিকতা আর কিভাবেই তা ফিরে পাওয়া যায়?

অধিক সময় সহবাস করার পদ্ধতি : ফরাসি যৌ’ন বিজ্ঞানীরা যৌ’নক্ষ’মতা কে দুটি সুনির্দিষ্ট ভাগে ভাগ করেছেন। তারা এক শ্রেণিকে বলেছেন অর্থাত্‍ আমার যখন ইচ্ছা তখনই আমি যৌ’ন মিল’ন এ অংশগ্রহণ করতে পারি। দ্বিতীয় শ্রেণী বলেছেন আমি মিলনে অংশগ্রহণ করতে পারি যখন আমার মধ্যে যৌ’নক্ষ’মতা বজায় থাকে। সাধারণতঃ ১৬ থেকে ৩৮ বছর বয়সের মধ্যে, কখনো কখনো ৪০-৪৫ বছর বয়স পর্যন্তও একজন পুরুষ দিন বা রাত্রি যে কোন সময়।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

যখনই ইচ্ছা যৌ’ন মিল’ন করতে প্রবৃত্ত হতে পারেন। এই যৌ’ন মিলন করার জন্য তিনি ইচ্ছা করলে রতিলী’লার দ্বারা নিজেকে উত্তেজিত করে নিতে পারেন অথবা রতিলী’লাকে বাদও দিতে পারেন। এই মিলনে তার স্ত্রী স’ঙ্গীর ইচ্ছা বা আধা ইচ্ছাও থাকতে পারে এবং যে কোন অবস্থায়, যে কোনো ভঙ্গিতে এবং যে কোন অবস্থানে চাইলে এরা মি’লন করতে পারেন। চল্লিশ বা পঞ্চাশোরধ ব্যক্তিরা মিল’নের সময় এবং সযন্তে নির্বাচন করে নিলেও সব সময় মিলনে অংশ গ্রহণ করতে পারে না।

বয়স যত বাড়তে থাকে, যৌ’ন মিল’নের বিরতির সময় ততই দীর্ঘ হতে থাকে। এই বয়সে মিল’নে প্রবৃত্ত হতে গেলে এরা রতিলী’লার দ্বারা তীব্রভাবে উত্তেজনা লাভের প্রয়োজন অনুভব করেন। শুধু রতিলীলায় অভিজ্ঞ, ধৈর্যশীল এবং তীব্র যৌ’ন আক’র্ষণ সম্পন্ন ব্যক্তিরা। মিলন সঙ্গীর এইসব দৈহিক এবং চরিত্রগুণ এই বয়সের পুরুষের যৌ’ন মিল’নের অন্যতম প্রধান সহায়ক। এমন বহু বয়স্ক আছেন, যারা অপরিচিত এবং অসহযোগী না’রীর সান্নিধ্যে এলে যৌ’ন অক্ষম হয়ে যান।

কিন্তু স্ত্রীর কাছে এলে মিল’নে সহজে অংশ গ্রহণ করতে পারেন। আবার স্ত্রীর বয়স বেশী হওয়ার জন্য অথবা কোন অসুখ-বিসুখের ফলে দৈ’হিক স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যাওয়া এইসব স্বামীরা যৌ’ন মিল’ন করতে অক্ষম হয়ে যান। পুরুষের বেশী বয়সে যৌ’ন অক্ষম হয়ে যাওয়ার মূলে যেসব কারণ আছে, এই কারণটি তার মধ্যে একটি অন্যতম প্রধান কারণ।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

সাধারণত অধিক সময় নিয়ে যৌ’ন মিলন করাটা পুরুষের সক্ষমতার উপরই নির্ভর করে। তথাপি কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে পুরুষরা তাদের মিলন কাল দীর্ঘায়িত করতে পারেন। তবে কে কতটা দীর্ঘ সময় নিয়ে যৌ’ন মিলন করবে এটা অনেকটাই তাদের চর্চার উপর নির্ভর করে থাকে।
এবং প্রত্যেকটি পুরুষ মাজে মধ্যে কবিরাজী ঔষধ খাওয়া দরকার।

Categories
Uncategorized

এবার মাত্র ৩ টাকা খরচা করে পান সুন্দর ত্বক’ ১০০% গ্যারান্টি।

শরীরের মধ্যে মুখ মানুষের সবচেয়ে বেশি প্রিয়। ছে’লে হোক বা মে’য়ে সবাই চায় নিজের মুখ সুন্দর রাখতে। তার জন্য ব্যাবহার করে নানা রকম প্রসাধনী দ্রব্য। সুন্দর ত্বক বা সুন্দর চেহারা চাইলে সবার আগে নিজের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ঘবে। যদি শরীর অ’সুস্থ হয় তাহলে তার ছাপ পড়বে আপনার ত্বকে। আর শরীর সুস্থ হলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল। আপনার ত্বক থাকবে তরুন।

সুন্দর থাকার জন্য অনেকেই অনেক কিছু করে থাকেন। কেউ ভালো ফল পান আবার কেউ উলটো ফল পান। সুন্দর হতে গিয়ে হয়ে যায় কুত্‍সিত। কিছু ক্ষতিকারক পদার্থের কারণে ত্বকের অনেক ক্ষতি হয়ে যায়। ত্বক যদি সুস্থ না থাকে তাহলে আপনাকে কখনই সুন্দর দেখাবে না।
আমাদের দেশে সাদা রং সবাই পেতে চায়। ফর্সা হতে চায়না এমন মানুষ আমাদের দেশে খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

ফর্সা হওয়ার জন্য ফেয়ারনেস ক্রিম ব্যবহার করেন অনেকেই। কিন্তু লাভের লাভ কিছুই হয় না। চলুন আজ জেনে নেওয়া যাক কী’ভাবে নিখুঁত ফর্সা, উজ্জ্বল ও সুন্দর ত্বক পাবেন.আপনি বাজারের বিভিন্ন ফেয়ারনেস ক্রিম বা অন্য কোন প্রসাধনী দ্রব্য ব্যবহার করে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন ? কোন ফল পাননি ? তাহলে আজ থেকেই শুরু করে দিন এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে রূপচর্চা।

যদি আপনার ত্বক ধুলোবালির কারণে, সূর্যালোকের কারণে বা ধোঁয়ার কারনে রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায় তাহলে এই ঘরোয়া প্রতিকারটি আপনাকে সুন্দর ত্বক ফিরে পেতে সাহায্য করবে। মাত্র ৩ টাকা খরচা করে পান সুন্দর ত্বক। যে কোন ওষুধের দোকানে পেয়ে যাবেন ভিটামিন-ই ক্যাপসুল। যার একটির দাম ৩ টাকা। প্রথমে কিছু ভিটামিন-ই ক্যাপসুল কিনুন তারপর সেই ক্যাপসুলে একটি ছিদ্র করে নিন।

তারপর ক্যাপসুলের ভিতরের তরল বের করে নিন। সেই তরলের সঙ্গে বাদাম তেল মেশান। মেশানোর পর সেই মিশ্রণটি রাতে শোবার আগে পুরো মুখে ম্যাসাজ করুন। অল্প কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করার পর সেটিকে সারা রাত মুখে রাখতে হবে এবং পরের দিন সকালে মুখ পরিস্কার করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এইভাবে বেশ কিছুদিন করার পর আপনি ফল পাবেন হাতে নাতে।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গো’পন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

ত্বক হবে চোখে পরার মত উজ্জ্বল সঙ্গে পাবেন সাদা রং। এই ক্যাপসুল খেতেও পারেন। প্রতিদিন একটি করে খেলে আপনার ত্বক এবং চুল সুন্দর হবে। তবে খাওয়ার আগে চিকিত্‍সকের পরাম’র্শ নেওয়া দরকার। কারণ সবার শরীরে এই ওষুধ সহ্য নাও হতে পারে। কারোর কারোর ক্ষেত্রে পার্শপ্রতিক্রিয়া হতে পারে।

Categories
Uncategorized

বাবার সামনেই হা’তেনাতে ধ’রা পড়েছিলেন সানি লি’ওন!

গোটা জীবন সানি লি’ওনের যেন এখন খোলা বই। কারণ তার বা’য়োপিক ওয়েব সি’রিজ ‘করণজিৎ কৌর: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ দেখে যে কেউ সহজেই জে’নে ফে’লতে পারবেন তার জী’বনের গু’রু’ত্বপূর্ণ অ’ধ্যায়গুলো।
কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

তার পরেও, যত বারই তিনি সাক্ষাৎকার দেন, তত বারই বি’স্মিত করেন তার অনু’রা’গীদের। মন জয় করে নেন দ’র্শকদের।

স’ম্প্রতি ফি’ল্মফেয়ারের অ’নুষ্ঠানে মু’খোমুখি সা’ক্ষাৎকার দি’য়েছিলেন সানি লি’ওন। সা’ক্ষৎকারের শেষ প’র্বে, র‌্যা’পিড ফা’য়ার রা’উন্ডে এই তারকাকে জিজ্ঞেস করা হয়, তার জীবনের প্রথম চু’ম্বনের স্মৃ’তি।

ম’নখোলা এই অ’ভিনেত্রী বলেন, সেই স্মৃ’তি আ’জীবন বয়ে বে’ড়াচ্ছেন তিনি। তবে সেই স্মৃ’তি নাকি সুখকর নয়।

কেন? সানি লি’ওন বলেন, সে সময়ে স্কুলে প’ড়তেন তিনি। এক প্রে’মিক জু’টেছিল সদ্য। প্রথম চু’ম্বনের স্মৃ’তি তারই স’ঙ্গে।

কিন্তু সেই চু’মু খেতে গিয়ে বাবার কাছে হা’তেনাতে ধ’রা প’ড়ে যান তিনি! আর এর পরেই তার পরিবারের ওপর দিয়ে দা’রুণ ঝ’ড় বয়ে গিয়েছিল। কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

২০১২ সালে প্রা’প্তবয়স্ক ছবির দুনিয়া ছাড়েন সানি লি’ওন। বলিউডে শু’রু করেন নতুন যাত্রা। বলিউডে কে’রিয়ার শুরু করা সানি লি’ওন গত বছর প্র’কাশ্যেই প্রথম বার প’র্ন দেখার অনুভূতি জা’নিয়েছিলেন।

বলেছিলেন প্রথম প’র্ন দেখার পরে তিনি যথেষ্ট বির’ক্ত হয়েছিলেন এবং কখনওই ভাবেননি, চ’রম বি’র’ক্তিকর এই ইন্ডাস্ট্রিতেই এক দিন তাকেও যু’ক্ত হতে হবে। কবিরাজ : তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদিক ঔষধের দ্বারা নারী- পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ঔষধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – খিলগাঁও, ঢাকাঃ। মোবাইল : ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

সানি লি’য়ন ও তার স্বামী ড্যা’নিয়েল ওয়েবার তিন সন্তানের মা-বাবা। ২০১৭ সালের জুলাই মাসে তারা প্রথম ক’ন্যাসন্তান নি’শাকে দ’ত্তক নেন। পরে ২০১৮ সালে সারো’গেসির মা’ধ্যমে জ’ন্ম নেয় তাদের ছেলে নোয়া ও আ’সের।

জ’নপ্রিয় ও বিত’র্কিত টিভি রিয়েলিটি শো ‘বিগ বস’-এর মাধ্যমে বলি’উডে পা রাখেন সানি লিওন। তিনি ‘জিসম টু’, ‘রাগিনি এমএমএস টু’, ‘এক পহেলি লীলা’, ‘কুছ কুছ লোচা হ্যায়’, ‘মা’স্তিজাদি’, ‘তেরা ই’ন্তেজার’ ও নিজে’র জী’বনীভিত্তিক ওয়েব সি’রিজ ‘ক’রণজিৎ কৌর’-এ অভিনয় ক’রেছেন।

Categories
Uncategorized

সাকিব’কে হ’ত্যা ক’রতে হেঁ’টেই ঢাকা যাব।

কলকাতায় গিয়ে সনাতন ধ’র্মালম্বীদের অন্যতম ধ’র্মীয় উৎসব কালীপূজা উদ্বোধন করায় বিশ্বসেরা সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি দিয়েছে এক যুবক। রবিবার দিবাগত রাত ১২টা ৭ মিনিটে ফেসবুক ভিডিওতে হত্যার হুমকি দেন সিলেটের সদর উপজেলার শাহপুর তালুকদারপাড়ার আজাদ বক্স তালুকদারের ছেলে মহসিন তালুকদার। তিনি বলেন, সাকিবকে হত্যা করতে প্রয়োজনে সিলেট থেকে হেঁটে ঢাকায় যাব।

নামের আইডি থেকে ওই যুবক এই লাইভ ভিডিওটি প্রচার করেন। সম্প্রতি কালীপূজা এক অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ গ্রহণ করে সাকিবের কলকাতায় যাওয়ায় বিক্ষুব্ধ হয়ে তাকে কুপিয়ে-টুকরো করে হত্যা করার কথা বলেন মহসিন। এসময় তিনি অকথ্য ভাষায় সাকিবকে গালাগাল করে নিজের পরিচয় প্রকাশ করে বলেন, সাকিবকে হত্যা করতে প্রয়োজনে তিনি হেঁটেই ঢাকা যাবেন।

এরপর ভোর ৬টা ৪ মিনিটে আবারো একটি লাইভ ভিডিওতে এসে রাতের উত্তেজিত ভিডিওর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। পাশাপাশি সাকিব আল হাসানকে জাতির উদ্দেশ্যে ক্ষমা চাইতে বলেন। এ সময় তিনি বলেন, কারো চাপে এখন এ ভিডিওটি নির্মাণ করছেন না।

বরং সাকিবকে একটা সুযোগ দেয়ার জন্য এবং সাকিবের মতো বাকি সকল সেলিব্রেটিদের সঠিক পথে চলার বার্তা দিতে আবার লাইভ করছেন তিনি। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার ভিডিওদুটি সরানো হয়নি। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যেই মাঠে নেমেছে পুলিশ। সাইবার ফরেনসিকের কাছে ভিডিও লিঙ্কটি হস্তান্তর করা হয়েছে। দ্রুতই এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) বিএম আশরাফ উল্ল্যাহ।