Categories
Uncategorized

এবারের ঈদের নামাজ, কী বলছেন মুসলিম স্কলাররা

সেই শিশুকাল থেকেই শুনে আসছি- ঈদ মানেই আনন্দ, ঈদ মানেই খুশি। এ নিয়ে বিখ্যাত কবি কাজী নজরুল ইসলাম গানও লিখেছেন- ও মন রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ…। কিন্তু যুগ যুগ ধরে চলে আসা ঈদের সেই আনন্দ এবার মাটি করে দিয়েছে মরণঘাতী করোনভাইরাস। ঈদের দিন সকলে বাইরে যাওয়া যাবে না, একসঙ্গে নামাজ পড়তে যাওয়া হবে না, এটা ভাবতেই যেন অবাক লাগে। এমন ঈদ কখনো দেখেননি কেউ।

এই অবস্থার মধ্যেই এবার বিশ্বে পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ভারতে চলছে তৃতীয় মেয়াদে লকডাউন। তবে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এবং চতুর্থ মেয়াদে যে লকডাউন গড়াবে তেমনই ইঙ্গিতও পাওয়া গেছে। যদি তাই হয়, তাহলে লকডাউনের এই ঘরবন্দি জীবনে কীভাবে হবে ঈদ উদযাপন?

এ ব্যাপারে দিল্লির জামে মসজিদের শাহী ইমাম আহমেদ বুখারি বলছেন, এ বছর ঈদ উদযাপন বাড়িতে বসেই করতে হবে। লকডাউনের মধ্যে বের হওয়া যাবে না। এমনকি আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধুবকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে টেলিফোনে।

দিল্লির জামে মসজিদের শাহী ইমাম আহমেদ বুখারি: আহমেদ বুখারি সাহেব ডয়চে ভেলেকে বলেন, এমন সংকট বিশ্ব কখনো দেখেনি। এই প্রথম জুমার নামাজে মসজিদে মানুষের জমায়েত নেই। যেহেতু জুমার নামাজের দিনেও বাড়িতে থাকতে হচ্ছে, তাই ঈদের নামাজেও বাড়িতে থাকা সম্ভব। সকলে যার যার অবস্থান থেকে ইবাদত-বন্দেগি করুন।

জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের এমিরেটাস অধ্যাপক আখতারুল ওয়াসে বলছেন, সবই সর্বশক্তিমান আল্লাহর সৃষ্টি। এমন পরিস্থিতিতে মানুষ যে একত্রে নামাজ পড়তে পারবে না, সেটা তিনি জানেন। আর তাই ঘরে থেকে নিজের মতো করে ইবাদত-বন্দেগি করলেও কোনো সমস্যা হবে না।

জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের এমিরেটাস অধ্যাপক আখতারুল ওয়াসে: ভারতের জয়পুরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান এই উপাচার্য আরো বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাইরে না যেয়ে এবং গণজমায়েতে অংশ না নিয়ে আগে নিজেকে রক্ষা করতে হবে। আর নিজেকে রক্ষা করা গেলেই অন্যকে রক্ষা করা যাবে। এ জন্যই এবারের ঈদ ঘরে বসে পালন করা জরুরি।

কিন্তু ঈদের নামাজ বাড়িতে বসে কীভাবে পড়া হবে- এমন প্রশ্নে ভারতের আরেক বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার মনজুর আলম বলছেন, ঈদের নামাজ সাধারণত খোলা জায়গায় সকলে মিলে পড়া হয়। এ বছর তো তা সম্ভব নয়। তাই ঘরে বা বাড়ির ছাদে শুধু পরিবারের লোকজন নিয়ে পড়া যেতে পারে। তবে ফ্ল্যাট বাড়ি হলে সকলে মিলে ছাদে নামাজ না পড়াই ভালো। কারণ এতে গোটা ফ্ল্যাটের লোকজন এক জায়গায় হলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা কঠিন হবে। অর্থাৎ নিজের বাড়ি হলেই ছাদে নামাজ পড়া যেতে পারে।

ভারতের বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার মনজুর আলম: ইসলামিক এই গবেষক বলছেন, এবারের ঈদে মানব সভ্যতার সুরক্ষা চেয়ে মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ প্রার্থনা হওয়া উচিত। মানব সভ্যতা যাতে এই মহামারি থেকে পরিত্রাণ পায়, দ্রুত সবকিছু স্বাভাবিক হয়- সে দোয়াই করা উচিত। পাশাপাশি অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো এবং আক্রান্তদের খোঁজখবর নেওয়ার পরামর্শও দেন তিনি।

আখতারুল ওয়াসেও মনে করছেন, এবারের ঈদে বাড়িতে ইবাদত-বন্দেগি করলে কোনো সমস্যা হবে না। পাশাপাশি অকারণে খরচ না করতে তথা জৌলুস কম করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর পরামর্শ দেন এই মুসলিম স্কলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *