Categories
Uncategorized

ঈদের আগেই শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ঘরে ফেরা মানুষের ঢল

গত ১৫ দিন ধরে ঢাকামূখী মানুষের চাপ ছিল শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে। তবে বৃহস্পতিবার (১৪ মে) ঈদের আগের ৪ দিন ও পরের দুইদিন গাড়ি চলাচলের ওপর সরকার কঠোর নিষেধাজ্ঞা করার পরই আজ শুক্রবার (১৫ মে) ঢাকা ছেড়ে গ্রামের পথে ছুটতে শুরু করেছে মানুষ। দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলায় যাওয়া মানুষের ঢল নেমেছে মাওয়ায়। শুক্রবার সকালে থেকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট দিয়ে শত শত যাত্রী পার হচ্ছেন ওপারে।

বেড়েছে দক্ষিণবঙ্গগামী ছোট গাড়ির চাপও। শিমুলিয়া ঘাট থেকে চন্দ্রের বাড়ির কাছ পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার লাইন পড়ে গেছে ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় থাকা ছোট গাড়ির। শত শত লোক এভাবে ফেরিতে গাদাগাদি করে পার হওয়ায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবার আশঙ্কা রয়েছে। বাস বন্ধ থাকায় ঢাকা থেকে যাত্রীরা মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, লেগুনা, মোটরসাইকেল ও উবারের অফলাইনের গাড়িতে করে শিমুলিয়া ঘাটে আসছে। আর শিমুলিয়া ঘাটে লঞ্চ, সিবোট বন্ধ থাকায় যাত্রীরা পার হচ্ছে ফেরিতে।

সরকার সাধারণ ছুটি বাড়িয়েছে। গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি ও দোকানপাটও পুরোপুরি না খোলায় তারা এখন হয়তো আবার বাড়ি ছুটছে। তাছাড়া সরকার ঘোষণা করেছে ঈদে নিজ নিজ ঘরে আবস্থান করতে হবে, বাড়ি যাওয়া যাবে না। তাই হয়েতো এসকল লোকজন আগেই বাড়ির উদ্দেশে ছুটছে বলে ধারণা করছে অনেকে। মাওয়া ট্রাফিক জোনের টিআই হেলাল উদ্দিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আজ শুক্রবার সকাল থেকে দক্ষিণবঙ্গমুখী যাত্রীর ঢল, সেই সাথে বেড়েছে ছোট ছোট গাড়ির চাপ।

এক দেড় কিলোমিটার ছড়িয়ে পড়েছে এ ছোট গাড়ির চাপ। ঢাকা থেকে লোকজন বিভিন্ন ধরণের ছোট ছোট গাড়িতে করে মাওয়ায় এসে ফেরি পার হচ্ছে। মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ পরিদর্শক সিরাজুল কবির জানান, মনে হচ্ছে ঈদের কেনা-কাটা শেষে লোকজন ঈদ করতে বাড়িতে ফিরছে। দক্ষিণবঙ্গমুখী শত শত লোক আজ শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি দিয়ে গ্রামের বাড়িতে ছুটছে। এইতো মাত্র কয়েক দিন আগেও ঢাকামুখী যাত্রীর ঢল ছিল, আর আজ শুরু হয়েছে দক্ষিণবঙ্গমুখী যাত্রীর ঢল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *