Categories
Uncategorized

গ’রুচোর আ’খ্যা দিয়ে নি’র্দয়ভাবে পি’টিয়েছ ‘ মা ও তরুণী মেয়েকে

কক্সবাজারের চকরিয়ায় বয়স্ক মা ও তরুণী মেয়ে’কে ‘গ’রুচোর’ আ’খ্যা দিয়ে নি’র্দয়ভাবে পিটিয়ে’ছে একদল দু’র্বৃত্ত। পরে কোমরে রশি বেঁধে মা-মেয়ে’কে প্রকাশ্যে সড়কে হাঁটিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে। সেখানে চেয়ারম্যান নিজেও তাদের আবার প্রহার করেন বলে অ’ভিযোগ ওঠে। নি’র্যাতনে অ’সুস্থ হয়ে পড়লে পুলিশ এসে তাদের উ’দ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ক’মপ্লেক্সে ভর্তি করে।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) দুপুরে চকরিয়া উপজেলার হারবাং পহরচাঁদা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘটনার ছবি প্রকাশের পর এটি শনিবার জানাজানি হয়। মা ও মেয়ে বর্তমানে চকরিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের শা’রীরিক অবস্থা শ’ঙ্কামুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন হা’সপাতালের চি’কিৎসকরা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চকরিয়া থানা’র হারবাং ত’দন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম বলেন।

শুক্রবার স্থা’নীয়রা ফাঁ’ড়িতে খবর দিলে আমরা ফো’র্স পাঠাই। আমাদের ফো’র্স গিয়ে গু’রুতর অ’বস্থায় মা-মেয়েকে উ’দ্ধার করে নি’জেদের হেফাজ’তে নিয়ে আসি। আমরা তাদের চি’কিৎসার ব্যবস্থা করেছি। তিনি আরও জানান, স্থানীয় এক ব্য’ক্তির দা’য়ের করা গরু চুরির মা’মলায় তাদের অ’ভিযুক্ত করা হয়েছে। অ’ভিযুক্তদের মধ্যে মা-মেয়েসহ চারজনের বাড়ি পটিয়ার শান্তির হাটে। অপরজনের বাড়ি চকরিয়া লালব্রিজ এলাকায়।

একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, একদফা মা-মেয়ের ওপর নি’র্যাতন চলার পর হারবাং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম চৌকিদার (গ্রাম পুলিশ) পাঠিয়ে তাদেরকে র’শিতে বেঁধে তার কার্যালয়ে এনে আবার নি’র্মমভাবে নি’র্যাতন করেন। উ’পর্যুপরি নি’র্যাতন শেষে চেয়ারম্যানের লোকেরাই ত’দন্তকেন্দ্রে ফোন করে পুলিশ এনে তাদের হাতে মা-মেয়েকে মুমূর্ষু অ’বস্থায় তুলে দেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অ’সমর্থিত একটি সূত্র জানায়, সুন্দরি মেয়েকে বিয়ে করতে চেয়ে ব্য’র্থ হয়ে চোরের অ’পবাদে পরিবারটিকে মধ্যযুগীয় কা’য়দায় নি’পীড়ন করা হয়েছে। অ’ভিযোগ সম্পর্কে জানতে হারবাং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলামের মু’ঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *