Categories
Uncategorized

চাঞ্চ’ল্যকর রিপোর্ট: আই’এসআই শীর্ষ এজে’ন্ডদের তালিকায় তারেক জিয়া

আইএসআই একটি দুর্ধ’র্ষ গোয়ে’ন্দা সংস্থা। বিশ্বের সেরা অপকর্ম সৃষ্টিকারী গোয়ে’ন্দা সংস্থার তালিকায় আইএসআই- এর নাম প্রথম দিকেই রয়েছে। আইএসআই- এর কার্যক্রম নিয়ে ইন্টারন্যাশনাল মিলিটারি জার্নাল বলেছে, তাদের কার্যক্রমের প্রধান লক্ষ্য হলো ভারত। ভারতের বিচ্ছি’ন্নতাবাদীদের উ’স্কে দেওয়া। ভারতে অশা’ন্তি সৃষ্টি করা এবং ভারতে অস্থিরতা তৈরী করার জন্য সারাবিশ্বে যত বিচ্ছি’ন্নতাবাদী এবং ভারত বিরো’ধী শক্তি আছে তাদেরকে এক করাই আইএসআই- এর প্রধান কাজ।

সম্প্রতি ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ একটি চাঞ্চ’ল্যকর রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। অত্যন্ত গো’পনীয় এই রিপোর্টটি ভারতের নীতিনির্ধারকদের কাছে ইতিমধ্যে দেওয়া হয়েছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা গেছে। আইএসআই- এর এই রিপোর্টটিতে আইএসআই এর সারাবিশ্বের নেটওয়ার্ক,

এবং নেটওয়ার্কে কারা কারা এজেন্ট হিসাবে কাজ করে সেরকম একটি তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছে। ‘র’ এর এই রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, এই সমস্ত ব্যক্তিরা ভারত বিরোধী তৎপরতায় আইএসআইকে সমর্থন যোগায়, মদদ যোগায় এবং আইএসআই এর এজেন্ট হিসাবে তাদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য সহায়তা করে ও কাজ করে।

মজার ব্যাপার হলো, আইএসআই- এর শীর্ষ এজেন্টদের যে তালিকা ‘র’ এর হাতে এসেছে সেখানে লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার নামও পাওয়া গেছে। আইএসআই- এর এই তালিকায় দাউদ ইব্রাহিমসহ একাধিক ব্যক্তির নাম পাওয়া গেছে। তবে তারেক জিয়ার নাম এই তালিকায় থাকাটা অত্যন্ত চাঞ্চ’ল্যকর বলেই মনে করছেন আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক এবং গোয়েন্দা বিশেষজ্ঞরা। কারণ তারেক জিয়াই এই তালিকার মধ্যে একমাত্র ব্যক্তি যিনি একটি দেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দলের গুরুত্বপূর্ণ শীর্ষ নেতা।

উল্লেখ্য যে, তারেক জিয়ার সঙ্গে আইএসআই- এর সম্পৃক্ততা নিয়ে বিত’র্ক নতুন কিছু নয়। ২০০১ সালের নির্বাচনের আগে তারেক জিয়া ভারতের ‘র’- এর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়েছিলো এমন তথ্য ভারতের গণমাধ্যমেই প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারেকের নাম না নিয়ে অন্তত ৩টি বক্তৃতায় বলেছেন যে, ‘র’ এর সঙ্গে বৈঠক করে এবং ভারতকে মুচলেকা দিয়ে ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় এসেছিলো।

টেলিগ্রাফসহ একাধিক পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টের তথ্য থেকে জানা যায়, তারেক জিয়া সে সময় ক্ষমতায় আসার জন্য ‘র’ এর কর্মকর্তাদের সঙ্গে অন্তত ৩ দফা বৈঠক করেছিলেন। কিন্তু ক্ষমতায় আসার পরই তারেক জিয়া তার অবস্থান বদল করেন। দ্যা টেলিগ্রাফ পত্রিকার অনুসন্ধানী রিপোর্ট অনুযায়ী এ সময় আইএসআই- এর সঙ্গে তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠতার খবর পাওয়া যায়। ২০০২ এবং ২০০৩ সালে দুবাইয়ে তারেক জিয়াসহ বিএনপির দুজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা আইএসআই- এর কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।

এই সময় ভারতে অস্থিরতা এবং সন্ত্রা’স সৃষ্টির জন্য বাংলাদেশকে করিডোর হিসাবে ব্যবহার করার উদ্যোগ গ্রহণ করে আইএসআই। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে অ’স্ত্র ভারতে পৌঁছে দেওয়া এবং ভারতে বিচ্ছি’ন্নতাবাদীদের অ’স্ত্র ও অর্থ সহায়তার কাজে তারেক জিয়া আইএসআইকে সহায়তা করে এমন তথ্য প্রমাণ ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা বহু আগেই প্রকাশ করেছে।

বাংলাদেশে যে ১০ ট্রাক অ’স্ত্র পাওয়া যায় তা কোথা থেকে এসেছে সে সম্পর্কে ইন্ডিয়া টুডের অনুসন্ধানী রিপোর্টে বলা হয়েছিলো যে, তারেক জিয়ার প্রত্যক্ষ তত্বাবধানে উলফাদের এই অ’স্ত্র সরবারহ করার জন্য চট্টগ্রাম বন্দরে নামানো হয়েছিলো। এর পর থেকেই তারেক জিয়া আইএসআই- এর প্যারোলে রয়েছে।

এখনো তিনি আইএসআই- এর জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেন বলে ‘র’ এর প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এই প্রতিবেদনে এটাও বলা হয়েছে যে, তারেক জিয়ার সঙ্গে ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সম্পর্ক রয়েছে। তারেক আইএসআই এর সঙ্গে মিলে ভারত সরকারকে দু’র্বল করা এবং ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক ন’ষ্ট করার জন্যও অত্যন্ত সক্রিয় বলে এই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

অবশ্য তারেকের আইএসআই- এর শীর্ষ এজেন্টদের তালিকায় থাকার অভিযোগ নতুন নয়। তারেক জিয়ার পক্ষ থেকেও এ ধরণের প্রতিবেদন, রিপোর্ট কিংবা গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ করা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *