Categories
Uncategorized

ডা. সাবরিনার যে শা’স্তি হতে পারে

ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী বাংলাদেশের অন্যতম নারী কার্ডিয়াক সার্জন। মহামারি করোনা ভাইরাসের এমন ক্রান্তিকালে ভু’য়া রিপোর্টসহ নানা অনিয়ম ও প্রতা’রণার অভিযোগে গ্রেফ’তার জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ারের (জেকেজি) কথিত চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী কারাগারে রয়েছেন। তাকে দুই দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে মাম’লার তদন্ত সংস্থা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

শুরু থেকে ডা. সাবরিনাকে জেকেজি হেলথ কেয়ারের চেয়ারম্যান বলা হলেও তদন্ত সংস্থা বলছে, প্রতিষ্ঠানটির আহ্বায়ক হিসেবেই জাল-জালিয়াতিতে তার সম্পৃক্ততার তথ্য মিলেছে। মাম’লার অন্য আসামিদের জবানবন্দিতেও প্রতা’রণার নেপথ্য নাম হিসেবে ঘুরেফিরে ডা. সাবরিনার কথা উঠে এসেছে। ডিবির সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ডা. সাবরিনাসহ আসামিদের বিরুদ্ধে দ্রুত চার্জশিট দেয়া হবে। এ মাম’লায় সাবরিনা ও তার সহযোগীদের সর্বোচ্চ শা’স্তি নিশ্চিত করতে চেষ্টা চালানো হবে বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা।

জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা না করেই ভু’য়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে গত ২৩ জুন তেজগাঁও থানায় মাম’লাটি করেন কামাল হোসেন নামে এক ব্যক্তি। মাম’লায় পেনাল কোডের ১৭০/২৬৯/৪২০/৪০৬/৪৬৬/৪৭১/৩৪ ধারায় অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে একাধিক ধারায় সর্বোচ্চ শা’স্তি সাত বছরের কারাদণ্ড।

সে জন্য আইনজীবীরা বলছেন, অভিযোগ প্রমাণ হলে ডা. সাবরিনার সাত বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতের অতিরিক্তি পাবলিক প্রসিকিউর (এপিপি) হেমায়েত উদ্দিন খান হিরন গণমাধ্যমকে বলেন, ডা. সাবরিনা একজন প্রতা’রক হিসেবে গ্রেফ’তার হয়েছেন। তিনি প্রতা’রণা করে অনেক মানুষকে বিপদে ফেলেছেন। মানুষের জীবন-মৃত্যু নিয়ে খেলেছেন। তার বিরুদ্ধে যে ধারায় মাম’লা করা হয়েছে তার সর্বোচ্চ শা’স্তি সাত বছরের কারাদণ্ড। তার যেন সর্বোচ্চ শা’স্তি নিশ্চিত হয় আমরা সেদিকে নজর রাখব।

এদিকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন বলেন, তদন্তে জেকেজির চেয়ারম্যান নয়, আহ্বায়ক হিসেবে ডা. সাবরিনা চৌধুরীর সম্পৃক্ততা পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। আশা করছি, এ মা’মলায় আমরা দ্রুত চার্জশিট দিতে পারব। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান হিসেবে তার পদে থাকার কোনো প্রমাণ আমরা পাইনি। তবে আহ্বায়ক হিসেবে সম্পৃক্ত থাকার কাগজ পাওয়া গেছে।

মাম’লার বাদী কামাল হোসেন বলেন, আমরা জেকেজি হেলথ কেয়ারে গিয়ে করোনা পরীক্ষা করে প্রতা’রিত হয়েছি। তাই আমি বাদী হয়ে মাম’লা করেছি। দোষীরা শা’স্তি পাক এটা আমি চাই। ডা. সাবরিনাসহ মাম’লার অপর আসামিরা মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছেন। তাদের বিচার হওয়া উচিত।

জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ারের (জেকেজি) বিরুদ্ধে অভিযোগ, সরকারের কাছ থেকে বিনা মূল্যে নমুনা সংগ্রহের অনুমতি নিয়ে বুকিং বিডি ও হেলথ কেয়ার নামে দুটি সাইটের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিল এবং নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভু’য়া সনদ দিচ্ছিল জেকেজি। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ২২ জুন জেকেজির সাবেক গ্রাফিক্স ডিজাইনার হুমায়ুন কবীর হিরু ও তার স্ত্রী তানজিন পাটোয়ারীকে গ্রেফ’তার করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে হিরু জানান, তিনি করোনার ভু’য়া সার্টিফিকেটের ডিজাইন তৈরি করতেন। আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতেও হিরু জেকেজির জালিয়াতির কথা স্বীকার করেছেন। এরপর ২৩ জুন জেকেজির সিইও আরিফুলসহ চারজন গ্রেফ’তার হয়। আর আরিফুলকে জিজ্ঞাসাবাদে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনার সম্পৃক্ততা উঠে আসে।

এরপর জালিয়াতির অভিযোগে গত ১২ জুলাই দুপুরে সাবরিনাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা না করেই ভু’য়া রিপোর্ট দেয়ার অভি’যোগে তেজগাঁও থানায় করা মাম’লায় গ্রেফ’তার করে পুলিশ। এর পর গত ১৩ জুলাই তাকে তিন দিনের রিমা’ন্ডে নেয়া হয়। ১৭ জুলাই আরও দুদিনের রিমা’ন্ডে নেয় ডিবি। দুই দফা রিমান্ড শেষে ২০ জুলাই তাকে কারা’গারে পাঠান আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *