Categories
Uncategorized

স্বা’মী স্ত্রী একে অপরের ল’জ্জাস্থা’নে মুখ দেওয়া কি ইস’লামে বৈ’ধ?

১/প্রশ্নঃ স্ত্রীর মুখে লি’ঙ্গ দেওয়া জায়েজ আছে কি?
২/প্রশ্নঃ বউয়ের যো’নিতে কি মুখ দেওয়া যাবে? ইসলাম কি বলে যদি পারেন জানাবেন।

কবিরাজ: তপন দেব । এখানে আয়ুর্বেদী ঔষধের মাধ্যমে- নারী ও-পুরুষের সকল প্রকার- জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

৩/প্রশ্নঃ স্বা’মী তার স্ত্রীর যো’নি এবং স্ত্রী তার স্বা’মী (পু’রুষাঙ্গ+যো’নি) চু’ষতে পারবে কি?

উপরের প্রশ্ন ৩ টি কিন্তু মূ’লে জবাব একটি। তাই তিনটির প্রশ্নের জবাব এক সাথে দিয়ে দিলাম।

উত্তরঃ মা আয়েশা সিদ্দিকা (রাঃ) বলেছেনঃ নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার লজ্জাস্থান দেখেন নি এবং আমিও নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের লজ্জাস্থান দেখেনি। তাছাড়া নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নি’ষেধ করেছেন লজ্জাস্থানে না তাকাতে। কেননা তাতে নাকী চোখের জ্যোতি কমে যায়।

দ্বিতীয়ত্বঃ যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগানো এটি একটি পশুভিক্তিক আচরণ। যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগানো এটা সভ্য মানুষের আচরণ হতে পারেনা। পশুদের হাত নেই বলেই তার স’ঙ্গীনিকে মুখ দ্বারা উ’ত্তেজিত করে। কিন্তু আপনার তো হাত আছে। আপনার হাত থাকতে কেনো আপনি (পুরু’ষ ও না’রী) কেনো যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগিয়ে আপনার স’ঙ্গীনিকে উ’ত্তেজিত করবেন?

আমার জানা মতে পশুরাও তো যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগায় না। তবে আপনি কেনো সৃষ্টির সেরা হয়ে যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগাবেন?

এটা তো প্রসাবের রাস্তা। আপনি কি যে পাত্রে প্রসাব করেন সে পাত্রে কি খাদ্য রেখে খাবেন? আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন আমার কোনো আপত্তি নেই। আমার এই কথার বিপরীতে যদি আপনি বলেন এটা (যৌ’না’ঙ্গ) তো ধোয়া ও পরিস্কার থাকে। জবাবে আমি আপনাকে বলবো আপনি কারো বাসায় মেহমান হয়ে গেলেন।

আপনার সামনে সে বাসার মালিকের ছোট্ট ছেলে ফল রাখার পাত্রেতে প্রসাব করে দিল এবং বাসার মালিক তা ধুয়ে সে পাত্রে আপনাকে ফল বা খাবার দেয়, আপনি কি সে খাবার খাবেন? অবশ্য আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন। আপনি তাকান তো আপনার নিজের দিকে।

আপনি যখন আপনার মায়ের গ’র্ভে ছিলেন, তখন মহান আল্লাহ আপনার মায়ের মাসিকের র’ক্ত বন্ধ করে সে র’ক্ত দিয়ে আপনার প্রা’ণ বাঁচিয়েছেন। সে মাসিকের র’ক্ত কি আপনাকে মুখ দিয়ে পান করিয়েছেন না কি নাড়ী দিয়ে। মহান আল্লাহ মাসিকের র’ক্ত নাড়ী দিয়ে আপনার দে’হ প্রবেশ করিয়ে আপনাকরিয়ে আপনার প্রা’ণ রক্ষা করেছেন।

কেনো করেছেন? উত্তর হচ্ছে এই র’ক্ত যদি আপনার মুখ দিয়ে আপনার দে’হে প্রবেশ করাতেন তাহলে আপনার মুখ টা না’পাক হয়ে যেত। তা হলে আপনি দুনিয়াতে এসে অপবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম নিতেন। আপনি যাতে পবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম জপতে পারেন সে জন্য মহান আল্লাহ এই ব্যবস্থার মাধ্যমে মায়ের গ’র্ভে আপনার প্রা’ণ বাঁচিয়েছেন।

তৃতীয়তঃ যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগালে যৌ’না’ঙ্গতে লেগে থাকা জী’বাণু আপনার দে’হে প্রবেশ করবে। তাতে আপনি অ’সুস্থ হওয়ার সম্ভবনা আছে। তাছাড়া আপনি যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগাবেন সে যদি যৌ’ন রো’গে আ’ক্রান্ত হয়ে থাকে তখন আপনি কি করবেন??? এখন আপনি যদি প্রশ্ন করেন ডাক্তারেরা তো বলে যৌ’না’ঙ্গতে মুখ লাগাতে।

উত্তরে আমি বলতে চাই, ডাক্তারেরাতো বলে পানি ফুটালে পানিতে থাকা জী’বাণুরা ম’রে যায়। কিন্তু পানিতে থাকা জী’বাণুরা ম’রে কি উড়ে যায় নাকি সে জী’বাণু পানিতেই থেকে যায়??? এখন আপনি যদি সে পানি খান তাহলে মরা জী’বাণুর সাথেই সে পানি খাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *