Categories
Uncategorized

ভারত সীমান্তে কয়েক হাজার সৈন্য, চিন বলছে পরিস্থিতি ‘স্বাভাবিক’

দ্বিচারিতা একেই বলে। একদিকে চিনের প্রেসিডেন্ট মঙ্গলবার দেশের সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হতে বলছেন, অন্যদিকে বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্রকে দিয়ে ঘোষণা করছেন, সীমান্তে ভারতের সঙ্গে কোনও সমস্যাই নেই। ঠিক কি চাইছে চিন, প্রশ্ন কূটনীতিকদের।

কবিরাজ: তপন দেব । নারী-পুরুষের সকল জটিল ও গোপন রোগের চিকিৎসা করা হয়। দেশে ও বিদেশে ওষুধ পাঠানো হয়। আপনার চিকিৎসার জন্য আজই যোগাযোগ করুন – ০১৮২১৮৭০১৭০ (সময় সকাল ৯ – রাত ১১ )

মঙ্গলবারের যুদ্ধের প্রস্তুতির ঘোষণার পরেই বুধবার চিনের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিঝিয়ান জানান, ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কে কোনও টানাপোড়েন তৈরি হয়নি। সীমান্তে কোনও সমস্যাও নেই। সবই স্থিতিশীল ও স্বাভাবিক রয়েছে।

লিঝিয়ান এদিন বলেন চিন বিশ্বাস করে আলোচনার মাধ্যমে সব ধরনের সমস্যার সমাধান সম্ভব। দুদেশের পারস্পরিক সম্পর্কের ভিত্তি বিশ্বাস, তা এখনও অটুট রয়েছে।

অথচ মঙ্গলবার চিনের প্রেসিডেন্ট সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যে বলেন যাতে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকা হয়। দেশকে সুরক্ষা দিতে সবরকমভাবে প্রস্তুত থাকতেও বলেন তিনি।

একদিকে ভরতের সঙ্গে সীমান্তে সংঘাত চকছে। অন্তত ১০০ তাঁবু বানিয়ে লাদাখের কাছে ঘাঁটি গেড়েছে চিনের সেনা। অন্যদিকে, ভাইরাস নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে বাকযুদ্ধ তুঙ্গে। এছাড়া হংকংয়ে নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। এই পরিস্থিতির মধ্যে যুদ্ধের বার্তা দিলেন চিনা প্রেসিডেন্ট।

চিনের কিছু সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে চিনের দ্বিতীয় এয়ারক্রাফট কেরিয়ার শিপইয়ার্ড ছেড়ে বেরচ্ছে। যদিও ওই ছবি বা ভিডিও-র সত্যতা যাচাই করা হয়নি, তবে ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর ই জিংপিং এমন বার্তা দেওয়ার চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

এদিন বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র বলেন চিন নিজের সীমান্ত সুরক্ষিত রাখতে প্রস্তুত। তবে আলোচনার মাধ্যমে সংঘাত মেটানো সম্ভব। চিন ও ভারতের মধ্যে সীমান্ত নিয়ে টানাপোড়েন নেই। সবই এখন স্বাভাবিক রয়েছে।

গত কয়েকদিন ধরে লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলের কাছে লাদাখে চোখে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে আছে দুই দেশের সৈন্য। মূলত প্যাংগং তোসো লেক ও গালোয়ান ভ্যালির কাছে এই ঘটনা ঘটছে। ওই অঞ্চলে চিনের অন্তত ২০০০-২৫০০০ সৈন্য এগিয়ে এসেছে।

ইতিমধ্যএই এই বিষয়ে বৈঠক হয়েছে নয়াদিল্লিতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, অজিত দোভাল বৈঠক করেছেন। পাশাপাশি, তিন বাহিনীর প্রধানেরাও বৈঠক করে গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিয়েছেন।

প্রাক্তন আর্মি কমান্ডার লেফট্যানেন্ট জেনারেল ডিএস হুদা বলেন, ‘এটা মোটেই স্বাভাবিক ঘটনা নয়। বিশেষ গালোয়ান ভ্যালিতে এভাবে চিনা সৈন্যের আনাগোনা বেশ উদ্বেগের বলে উল্লেখ করেছেন তিনি, কারণ ওই অঞ্চল নিয়ে দুই দেশের মধ্যে কোনও বিতর্ক নেই। অথচ সেখানেই সৈন্য মোতায়েন করেছে চিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *